মির্জা ফখরুলের বক্তব্য হাস্যকর : ওবায়দুল

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক

নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না- তা প্রমাণের জন্যই বিএনপি সিটি করপোরেশন ভোটে যাচ্ছে বলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বক্তব্যকে ‘হাস্যকর’ বলেছেন ওবায়দুল কাদের। অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনকে সব ধরনের সহযোগিতার প্রতিশ্রæতি দিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেছেন, বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিয়েছে জনগণ তাদেরকে ভোট দিলে তারা জিতবে। আমাদের জনগণ না চাইলে আমরা হেরে যাব।

নির্বাচন নিয়ে নেতিবাচক বক্তব্য দেওয়ার আগে নির্বাচনটা কেমন হয় তা দেখার অপেক্ষায় থাকার জন্য বিএনপি নেতাদের প্রতি আহŸান জানিয়েছেন তিনি। বুধবার এক আলোচনা সভায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছিলেন, আওয়ামী লীগকে সরকারে রেখে নির্বাচন যে সুষ্ঠু হবে না, তা প্রমাণের জন্যই তাদের এই অংশগ্রহণ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে  দলের ত্রাণ সমন্বয় টিমের বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদেরের কাছে মির্জা ফখরুলের ওই বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানতে চান সাংবাদিকরা।

ওবায়দুল কাদের বলেন, এ ধরনের বক্তব্য হাস্যকর। নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে জেতার জন্য, তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে নির্বাচনটা খারাপ এটা প্রমাণ করার জন্য। তারা কী করে বুঝল নির্বাচনটা খারাপ হবে?

নির্বাচন হওয়ার আগে মন্তব্য সিলেটেও করেছে, সেখানে তারা জিতেছে। কুমিল্লায় করেছিল, সেখানেও তারাই জিতেছে। এ ধরনের বক্তব্য দেওয়ার অর্থ হচ্ছে, তাদের গণতন্ত্রের প্রতি কোনো শ্রদ্ধা নেই। তারা আসলে ক্ষমতার রাজনীতি করে, ক্ষমতাকেন্দ্রিক রাজনীতি করে। ক্ষমতা পেলে সব ঠিক, ক্ষমতা না পেলে ঠিক হয় না।

এর আগে নারায়ণগঞ্জে ‘সুষ্ঠু নির্বাচন’ হলেও সেখানে বিএনপি কারচুপির অভিযোগ তুলেছিল জানিয়ে তিনি বলেন, কারচুপির অভিযোগ তোলা, এটা তাদের পুরানো স্বভাব।

বিএনপি ‘গণতন্ত্রের ভাষা বোঝে না’ অভিযোগ করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, তারা নিজেদের হিসেব মতই চলেন, গণতন্ত্রের ভাষা তারা বুঝেন না। তারা আইন মানেন না, তারা আদালত মানেন না, সংসদ মানেন না। কোনো কিছুতেই তাদের কোনো শ্রদ্ধা নেই। তাদের একমাত্র লক্ষ্য যেনতেনভাবে ক্ষমতায় যাওয়া, ক্ষমতায় গিয়ে লুটপাট করবে, হাওয়া ভবন বানাবে, দুর্নীতি করবে, সন্ত্রাস খুনের রাজনীতি করবে। ক্ষমতায় যাওয়াটাই তাদের উদ্দেশ্য। যদি নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ক্ষমতায় যেতে না পারে তাহলে তারা ষড়যন্ত্রমূলক চোরাই পথ খুঁজে বেড়ায়।

দেশের শতকরা ৯০ ভাগ লোক এই সরকারকে চায় না বলে মির্জা ফখরুলের বক্তব্যের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ওবায়দুল কাদের বলেন, তাদের নেতিবাচক রাজনীতির জন্য ৯০ শতাংশ মানুষ বিএনপিকে চায় না। এ সংখ্যাটা আস্তে আস্তে আরও বাড়বে। এরপর দেখবেন ৯১, ৯২, ৯৩, ৯৪ এভাবে এই শতাংশ এমন হবে যে, তারা একেবারে তলানিতে গিয়ে পৌঁছাবে।

ইভিএমে নির্বাচনে কোথাও কোনো কারচুপির অভিযোগ উঠেনি দাবি করে তিনি বলেন, যেখানে ইভিএমে নির্বাচন হয়েছে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বিএনপিই জয় পেয়েছে। ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনে কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়নপ্রাপ্তদের মধ্যে বিতর্কিতদের বাদ দেওয়ার জন্য টিম করে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, বিভিন্ন জরিপের রিপোর্ট এবং আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যদের আলাপ-আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নিয়েছি, কাউন্সিলরদের মনোনয়ন দিয়েছি। সব সিদ্ধান্ত সঠিক নাও হতে পারে। আমরা সেজন্য মনোনয়ন প্রত্যাহার পর্যন্ত আমাদের টিম ওয়ার্ক হচ্ছে।

কোথায় কোথায় আমাদের প্রার্থীর অবস্থা কী এবং কোথাও যদি বিতর্কিত প্রার্থী থেকে থাকে এগুলো আমরা ফাইন্ড আউট করব এবং আমরা যথাযথ প্রার্থীকে ঘোষণা করব। এ ব্যাপারে আমাদের টিম ওয়ার্ক হচ্ছে।

 

 

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.