উন্নত দেশ হিসাবে গড়তে উন্নয়ন পরিকল্পনা গড়ে তুলছেন প্রধানমন্ত্রী

রাজধানীতে দ্বিপাক্ষিক সভায় সিটি মেয়র

 

 

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক জাপান ভিত্তিক উন্নয়ন সংস্থা জাইকা’কে বাংলাদেশের অন্যতম উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, বর্তমান সরকার এমডিজির সফলতার ধারাবাহিকতায় এসডিজিতেও সফলতা ধরে রেখে ২০৪১ সালের মধ্যে দেশকে পৃথিবীর মানচিত্রে উন্নত দেশ হিসাবে স্থান করে নিতে চায়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সে লক্ষ্যকে সামনে রেখে উন্নয়ন পরিকল্পনা গড়ে তুলছেন। এ জন্য আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহের সহযোগিতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

সিটি মেয়র গতকাল বুধবার সকালে ঢাকাস্থ জাইকা’র কার্যালয়ে খুলনা সিটি কর্পোরেশন ও জাইকা’র মধ্যে অনুষ্ঠিত ‘‘ক্লাইমেট রিজিলিয়েন্ট গ্রীণ সিটি-খুলনা’’ শীর্ষক দ্বিপাক্ষিক সভায় বক্তৃতা করছিলেন।

সিটি মেয়র আরো বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে খুলনা নগরীসহ এ অঞ্চল ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলের আওতায় রয়েছে। আইলা সিডরসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে ছিন্নমুল মানুষ কাজের সন্ধানে শহরমুখী হচ্ছে, ঘটছে অভিবাসন প্রক্রিয়া। এছাড়া সরকারের উন্নয়নের ধারায় আশেপাশে যে সকল শিল্প কারখানা গড়ে উঠছে সেখানেও অদূর ভবিষ্যতে কর্মজীবী মানুষের বাসস্থান গড়ে উঠবে। তাই নগরের পরিধি স্বাভাবিকভাবেই বৃদ্ধির প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে এবং সম্প্রসারিত অংশে পরিকল্পিতভাবে সড়ক, বাজার, ড্রেনেজ, পয়:নিস্কাশন, বিদুৎ, বিনোদন, শিক্ষা, কর্মসংস্থান, স্বাস্থসেবা গড়ে তুলতে হবে। একটি আধুনিক ও সময়োপযোগী ববস্থাপনা গড়ে তুলতে সরকারের পাশাপাশি তিনি জাইকা’র সহযোগিতা কামনা করেন।

বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় কেসিসি’র সক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন, জলাবদ্ধতা নিরসনে ড্রেনেজ ব্যবস্থার আধুনিকায়ন, দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলতে ট্রেনিং ইনস্টিটিউট স্থাপন, উপক‚লীয় বাধ রক্ষণাবেক্ষণে কারিগরি সহযোগিতা প্রদান, সুন্দরবনসহ দুর্গম এলাকায় সাইক্লোন সেল্টার নির্মাণ, বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করে লবনাক্ত এলাকার পানির চাহিদা পূরণে সহযোগিতা প্রদান, কৃষি ফসলের বিকাশ, স্থানীয় এনজিওগুলিকে সহযোগিতা প্রদান এবং পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে খুলনায় যোগাযোগ অবকাঠামোগত উন্নয়নে সহযোগিতা প্রদানের বিষয় দ্বিপাক্ষিক সভার আলোচনায় স্থান পায়।

জাইকার’ চীফ রিপ্রেজেন্টেটিভ হিতোশি হিরাতা, সিনিয়র রিপ্রেজেন্টেটিভ কোজি মিতোমোরি, ইয়াশুহিরো কাওয়াজু, কেসিসি’র চীফ প্লানিং অফিসার আবির উল জব্বার, স্থানীয় এনজিও এ্যাওসেড-এর নির্বাহী পরিচালক শামীম আরফীন প্রমুখ দ্বিপাক্ষিক সভায় উপস্থিত ছিলেন।

 

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *