February 26, 2024
খেলাধুলাজাতীয়লেটেস্ট

১০০ ছুঁয়ে সাকিবের অনন্য ‘ডাবল’

ক্রীড়া ডেস্ক
বাংলাদেশ ক্রিকেটের অনেক প্রথম অর্জন এসেছে সাকিব আল হাসানের হাত ধরে। এবার বিশ্ব ক্রিকেটেই একটি জায়গায় তিনি হয়ে গেলেন প্রথম। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ১ হাজার রান ও ১০০ উইকেটের ডাবল পূর্ণ করলেন বাংলাদেশের অলরাউন্ডার।
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টিতে সাকিব নাম লেখান এই ইতিহাসে। ৯৮ উইকেট নিয়ে ম্যাচ শুরু করেছিলেন তিনি। ম্যাথু ওয়েডকে বোল্ড করে এগিয়ে যান এক ধাপ। পরে অ্যাশটন টার্নারের উইকেট নিয়ে পূর্ণ হয় এই সংস্করণে তার ১০০ উইকেট। হাজার রান পেরিয়ে গেছেন তিনি বেশ আগেই।
সব মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত টেস্টে এই ‘ডাবল’ অর্জন করেছেন ৭১ জন, ওয়ানডেতে ৬৫। দুই সংস্করণেই আলাদাভাবে করতে পেরেছেন ২৪ জন অলরাউন্ডার। বলাই বাহুল্য, তিন সংস্করণে সাকিবই প্রথম! টেস্টে এই ‘ডাবল’ প্রথম করেছিলেন জর্জ গিফেন। অস্ট্রেলিয়ার এই পেস বোলিং অলরাউন্ডার ১৮৯৫ সালে স্পর্শ করেন ১ হাজার রান, ১৮৯৬ অ্যাশেজের ওল্ড ট্র্যাফোর্ড টেস্টে পূর্ণ করেন ১০০ উইকেট।
ওয়ানডেতে এই কীর্তি প্রথম গড়েন স্যার ইয়ান বোথাম। ওয়ানডেতে হাজার রান পূর্ণ করেন তিনি ১৯৮৩ সালে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়েলিংটনে, ১০০ উইকেটের মাইলফলকে পা রাখেন ১৯৮৫ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে লর্ডসে।
সাকিবের ১ হাজার রান পূরণ হয়েছিল সেই ২০১৬ বিশ্বকাপে, কলকাতায় পাকিস্তানের বিপক্ষে ৪০ বলে ৫০ রান করার পথে। ৫ বছর পর হলো উইকেটের সেঞ্চুরি। সাকিবের আগে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ১০০ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব আছে কেবল একজনেরই, লাসিথ মালিঙ্গা। সাবেক এই লঙ্কান পেসার রান করতে পেরেছেন কেবল ১৩৬।
এই সংস্করণে ১ হাজার রান করা ক্রিকেটারদের মধ্যে সাকিবের পরে সবচেয়ে বেশি উইকেট শহিদ আফ্রিদির, ৯৮টি। পাকিস্তানি অলরাউন্ডার আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের ইতি টেনেছেন বেশ আগেই। হাজার রান করাদের মধ্যে এরপর সবচেয়ে বেশি উইকেট ডোয়াইন ব্রাভোর ৭৬, মোহাম্মদ নবির ৭২ ও মোহাম্মদ হাফিজের ৬০।
ব্রাভো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলবেন আগামী অক্টোবর-নভেম্বরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শেষে। হাফিজেরও সেটিই করার কথা। সাকিবের মতো ডাবল অর্জনের বাস্তব সম্ভাবনা আপাতত আছে নবির। তবে এই আফগান অলরাউন্ডারের বয়সও ৩৬ পেরিয়ে গেছে বেশ আগেই।
সাকিবের পর একশ টি-টোয়েন্টি উইকেটের ছোঁয়ার দৌড়ে আছেন টিম সাউদি (৯৯ উইকেট) ও রশিদ খান (৯৫)। তবে ব্যাট হাতে হাজার রান তাদের এখনও যোজন যোজন দূরে। সাউদির রান মোটে ২৪৯, রশিদ খানের ১৭৯। এই ডাবল-এ তাই আগামী বেশ কিছুদিন সাকিবের একা থাকা নিশ্চিত।

দক্ষিণাঞ্চল প্রতিদিন/ জে এফ জয়

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *