হোমিও দোকানে স্পিরিট পান সাংবাদিকসহ ২ জনের মৃত্যু

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক
রাজশাহীতে হোমিওপ্যাথি দোকানে ‘রেক্টিফায়েড স্পিরিট’ পানের পর সাংবাদিকসহ দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ এক হোমিওপ্যাথি চিকিৎসককে আটক করেছে। জেলার বাঘা থানার ওসি মহসীন আলী জানান, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার তারা মারা যান।
তারা হলেন বাঘার সাংবাদিক এসএম সেলিম আহম্মেদ ভাণ্ডারী (৩৪) ও তার বন্ধু রনি। সেলিম উপজেলার মণিগ্রামের শামসুল ইসলামের ছেলে। তিনি যায়যায়দিন ও আমাদের রাজশাহীসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমের বাঘা উপজেলা প্রতিনিধি ছিলেন। আর রনি ছিলেন একই এলাকার আটঘরি গ্রামের শ্রী সূর্যের ছেলে।
ওসি মহাসীন প্রাথমিক তদন্তের বরাতে বলেন, সেলিম ও রনি বুধবার রাতে মণিগ্রাম বাজারে ‘নিরাময় হোমিও হলে’ বসে রেক্টিফায়েড স্পিরিট পান করেন। তারা বাড়ি ফিরে অসুস্থ হয়ে পড়লে রাতেই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে রনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। আর সাংবাদিক সেলিম মারা যান রাত ১১টার দিকে।
ঘটনার পর পুলিশ তদন্তে নেমে ওই দোকান থেকে এক কার্টন রেক্টিফায়েড স্পিরিট উদ্ধার করে বলে জানান ওসি মহসীন। তিনি বলেন, প্রাথমিক তদন্ত, চিকিৎসকের মতামত, সুরতহাল প্রতিবেদন ও পরিবারের সদস্যদের কাছে দেওয়া সেলিমের জবানবন্দির ভিত্তিতে নিরাময় হোমিও হলের মালিক ও হোমিও চিকিৎসক মাজেদুর রহমানকে আটক করা হয়েছে। শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে মণিগ্রামের বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়। এছাড়া পুলিশ ওই দোকান থেকে এক কার্টন রেক্টিফায়েড স্পিরিট উদ্ধার করেছে।
এ বিষয়ে সাংবাদিক সেলিমের চাচা কায়েম উদ্দিন বলেন, সেলিম মৃত্যুর আগে বলে গেছে, নিরাময় হোমিও হলে তাকে বিষাক্ত কিছু খাওয়ানো হয়েছিল। এর পর থেকে তার শরীর খারাপ হতে থাকে।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.