সুষ্ঠু নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে অপচেষ্টায় লিপ্ত স্বার্থান্বেষী মহল

সংবাদ সম্মেলনে কয়রা উপজেলা চেয়ারম্যান

দ: প্রতিবেদক

কয়রা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোট কারচুপি, কেন্দ্র দখল ও লুটপাটে ব্যর্থ হয়ে অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে একটি স্বার্থান্বেষী মহল লিপ্ত রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান এস এম শফিকুল ইসলাম। গতকাল রবিবার বিকাল ৪টায় খুলনা প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত ৩১ মার্চ অনুষ্ঠেয় কয়রা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জনগণের বিজয় হয়েছে। কয়রাবাসীর এ বিজয়কে কলুষিত করতে দুর্নীতিবাজ জিএম মোহাসিন রেজা ও তার কর্মী-সমর্থকরা নির্বাচনের পর নানা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে মিথ্যা তথ্য পরিবেশন করে আমার ভাবমূর্তিই ক্ষুণœ করেনি, বরং কয়রাবাসীকে অপমান করেছে।

তিনি বলেন, গত ৪ এপ্রিল এখানে সংবাদ সম্মেলনে কয়রার কুখ্যাত সন্ত্রাসী আইয়ুব আলী ও তার ভাই শাহবাজ আলী টেক্কার নেতৃত্বে অবান্তর, মিথ্যা ও ভিত্তিহীন তথ্য পরিবেশন করেছে। আসল ঘটনা হলো- ‘আামি নির্বাচনে অংশ নেওয়ার পর থেকে পাঁচ ইউপি চেয়ারম্যান, জেলা পরিষদের দুই সদস্য, জেলা আ’লীগের কোষাধ্যক্ষ, কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সম্পাদক, উপজেলা আ’লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের সিনিয়র নেতারা আমার পক্ষে কাজ করেছেন। ১৪ মার্চ প্রতীক নিয়ে কয়রা আসার আগেই পল­ীমঙ্গল এলাকায় আমার কর্মী-সমর্থকদের উপর হামলা করা হয়েছে। ওইদিন রাতেই জেলা পরিষদের সদস্য জহুরুল হক বাচ্চুসহ চারজনকে কুপিয়ে জখম করে মোহসিন রেজার পোষ্য সন্ত্রাসীরা। অথচ, তারাই বলে আমার নাকি বাহিনী আছে।’

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের তিনদিন আগে বাগালী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তার পাড় ঘুগড়াকাটি বাজারে মতবিনিময়কালে ইকবাল সানার নেতৃত্বে হামলা করা হয়। ওইসময় চেয়ারম্যানকে জীবনে শেষ করে দেওয়ার হুমকিও দেয়া হয়। তখন পুলিশের টহল গাড়ী চলে আসায় প্রাণে রক্ষা পান ইউপি চেয়ারম্যান। অন্য চেয়ারম্যানদেরও আনারস প্রতীকের প্রচারণায় অংশ না নেওয়ার জন্য হুমকি দেয়া হয়।

নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান বলেন, অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা গত শুক্রবার দিবাগত রাতে শ্রীরামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সামনে সাংবাদিক শাহাজাহান সিরাজের উপরে জমিজমা বিরোধের জের ধরে সন্ত্রাসীরা অতর্কিত হামলা চালিয়ে কুপিয়ে জখম করেছে। আমি এ ঘটনার জন্য তীব্র নিন্দা জানাই এবং ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাই। কিন্তু ঘটনাটিকে রাজনৈতিক রং লাগিয়ে ওই পরাজিত শক্তি কয়রাবাসীর ভোটে নির্বাচিত চেয়ারম্যানকে কলঙ্কিত করার চেষ্টা করছে বলে তিনি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আমাদী ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ আমির আলী গাইন, বাগালী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আঃ ছাত্তার পাড়, মহেশ্বরীপুর ইউপি চেয়ারম্যান বিজয় কুমার সরদার, সদরের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান নাজমুল শাহাদাৎ, আ’লীগ নেতা এ কে এম ফজলুল হক, জেলা পরিষদ সদস্য জহিরুল হক বাচ্চু, মো: মোজাফফার হোসেন, আক্তারুজ্জামান (খোকন) প্রমুখ।

 

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *