সাতক্ষীরায় রেজিস্ট্রার ও সাব-রেজিস্ট্রারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি
ঘুষ খোর ও দুর্নীতিবাজ সাতক্ষীরা জেলা রেজিস্ট্রার ও তার সহযোগী সাব-রেজিস্ট্রারের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। জেলা ভূমিহীন ঐক্যপরিষদের আয়োজনে গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সামনে উক্ত মানববন্ধন কর্মসূচিটি পালিত হয়।
সাতক্ষীরা জেলা ভূমিহীন ঐক্যপরিষদের সভাপতি কওছার আলীর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, জেলা নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের আহবায়ক ও জজকোর্টের অতিরিক্ত পিপি এড. ফাহিমুল হক কিসলু, জেলা ভূমিহীন ঐক্যপরিষদের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ, সংগঠনটির সহ-সভাপতি মফিজুর রহমান, আরমান আলী, অর্থ সম্পাদক মনিরুজ্জামান, মারুফা খাতুন, বাবলু হাসান প্রমুখ।
বক্তারা এসময় বলেন, ঘুষ, অনিয়ম, দুর্নীতি ও জমির শ্রেণি পরিবর্তন করে সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে দলিল রেজিষ্ট্রি করে লক্ষ্য লক্ষ্য টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে জেলা রেজিষ্ট্রার মুন্সি রুহুল ইসলাম ও তার সহযোগি সাব-রেজিস্ট্রার রফিকুল ইসলাম। তারা ঘুষের টাকা আদায় করার জন্য নকল নবিশ আবুল কাশেমসহ কয়েকজন ব্যক্তিকে নিয়োগ দিয়েছেন। জেলা রেজিস্টারের কথামত প্রতিদিন প্রায় ১০লক্ষ্য টাকা জনসাধারণের কাছ থেকে চাঁদা আদায়ের মিশন বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে ওই চক্র। এছাড়া জেলা রেজিস্ট্রার মুন্সি রুহুল ইসলামের বিরুদ্ধে রয়েছে জন্ম তারিখ জালিয়াতি করে দীর্ঘদিন ধরে চাকুরী করার অভিযোগ। তারা আরো বলেন, জেলা ও সাব রেজিষ্ট্রারের নেতৃত্বে বর্তমানে রেজিষ্ট্রি অফিস এখন অনিয়ম-দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে।
উল্লেখ্য গত এক বছরে আগে সাতক্ষীরা জেলা রেজিষ্ট্রার মুন্সি রুহুল ইসলামকে অবসরে যাওয়ার কথা থাকলেও জন্ম তারিখ জালিয়াতি করায় বর্তমানে তিনি চাকুরিতে রয়েছেন বহাল তরিয়তে। চাকুরির প্রথম জীবনের খেদমতবই এ চাকুরির অনুলিপির কপিতে সিরিয়াল নং-২৩২-এ তিনি তার জন্ম তারিখ উল্লেখ করেছিলেন ৩০ নভেম্বর ১৯৫৮ সাল। সে অনুযায়ী তার অবসরে যাওয়ার কথা গত ২০১৭ সালের ২৯ নভেম্বর। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকুরির মেয়াদ ১ বছর বৃদ্ধি পাওয়ায় তার অবসরে যাওয়ার কথা ছিলো ২৮ নভেম্বর-২০১৮ তারিখে। কিন্তু ২০১৮ সালে এসে সাতক্ষীরা জেলা রেজিষ্ট্রার ২০১৩ সালের একটি খেদমত বইতে জন্ম তারিখ পরিবর্তন করে ১৯৫৮ সালের পরিবর্তে ১৯৫৯ সাল উল্লেখ করেছেন। আর ওই জাল জন্ম তারিখ দেখিয়ে তিনি চাকুরিতে বহাল থেকে বেতন ভাতাসহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা গ্রহস করছেন।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.