সততা যেন বিসর্জন না দিই : কর্মকর্তাদের খাদ্যমন্ত্রী

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক
খাদ্যমন্ত্রী হিসেবে সততার সঙ্গে যাতে দায়িত্ব পালন করে যেতে পারেন সেজন্য কর্মকর্তাদের সহযোগিতা চাইলেন সাধন চন্দ্র মজুমদার, যিনি ইউপি চেয়ারম্যান থেকে ধাপে ধাপে এই পর্যায়ে এসেছেন। নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলার কৃষক পরিবারের সন্তান সাধন পারিবারিকভাবেই চালের ব্যবসায় যুক্ত। ভোটের পর চালের দাম বাড়ায় চালকল মালিক ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বসতে চেয়েছেন তিনি।
মঙ্গলবার সচিবালয়ে প্রথম অফিসে এসে কর্মকর্তাদের উদ্দেশে সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, আমি সততা-নিষ্ঠা নিয়েই এ পর্যন্ত এসেছি। আপনাদের কাছে আমার প্রত্যাশা, আমার ভেতর যাতে অহঙ্কার না ঢোকে, আমি যেন সততা বিসর্জন না দেই সেই দোয়া করবেন। এই দোয়া ও সততা নিয়েই খাদ্য মন্ত্রণালয় চালাতে চাই। আপনারা আমাকে সহযোগিতা করবেন। খাদ্য মন্ত্রণালয়ে একটু কিছু হলেই দুর্নাম শুর“ হয়ে যায়। আমাদের এই দুর্নাম যাতে না হয়।
নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাধনের জনপ্রতিনিধি হিসেবে যাত্রা শুরু হয় নিজের ইউনিয়ন হাজীনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার মধ্য দিয়ে। এরপর আশির দশকে এরশাদ আমলে তিনি নিয়ামতপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হন। ২০০৮ সাল থেকে টানা তৃতীয় দফায় নওগাঁ-১ আসন থেকে সাংসদ হয়েছেন তিনি।
তৃণমূল থেকে উঠে আসার কথা জানিয়ে সাধন চন্দ্র বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান থেকে এই পর্যন্ত এসেছি। আমার বোঝার মতো জ্ঞান আছে। আমি চাই, আমরা সবাই একসাথে একটা টিমওয়ার্ক করব। অনেক ফাইল সচিব হয়েই চলে যাবে, কিন্তু সেটা সততার সাথে যেন আমার নলেজে থাকে।
এই মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন দপ্তরে দুর্নীতির অভিযোগের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে মন্ত্রী বলেন, আমি সবে বসেছি। দুর্নীতি আছে কি নেই সেটা আমাকে আগে বুঝতে হবে। আমি তো ঢালাও বলব না দুর্নীতি আছে।
সাংবাদিকরা চালের দাম বাড়ার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, এটা নিয়ে আমি সচিব সাহেবের সঙ্গে বসব। আমি চিন্তা করছি যে, প্রত্যেকটি জেলার চালকল মালিক সমিতির প্রেসিডেন্ট, সেক্রেটারি ও চাল ব্যবসায়ী সমিতির নেতাদের নিয়ে ১০ তারিখে (জানুয়ারি) বসব।
তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কী চিন্তা করেছেন জানি না। খাদ্য মন্ত্রণালয় অনেক বড় মন্ত্রণালয়। এটাও ঠিক খুবই সেনসেটিভ মন্ত্রণালয়। (চালের দাম) দুই টাকা কমলেও দোষ, দুই টাকা বাড়লেও দোষ।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.