সংবাদ সম্মেলনে সিটি মেয়র কেসিসিতে দুর্নীতির প্রশ্রয় হবে না

দ: প্রতিবেদক
খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, জাতীয় স্কেলের সাথে সমন্বয় করে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন দেওয়া হচ্ছে না। সুতরাং এখানে দুর্নীতির কোন প্রশ্নই আসে না। যদি কেউ দুর্নীতি করে বা প্রশ্রয় দেয়, তাহলে তার বিরুদ্ধে সাময়িক বরখাস্ত সহ কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
গতকাল রবিবার বেলা সাড়ে ৩টায় কেসিসি’র শহীদ আলতাফ মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্দেশ্যে সিটি মেয়র এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার যে লক্ষ্যে নিয়ে দেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন, সেটাকে অব্যাহত রাখতে হবে।
ইজিবাইক প্রসঙ্গে সিটি মেয়র বলেন, খুলনা শহরের যারা ভোটার সেইসব ইজিবাইক চালকদের লাইসেন্স প্রদান করা হবে। ৫ শত টাকার মাধ্যমে সরাসরি মেয়র দপ্তর থেকে ফরম নিয়ে আবেদন করতে হবে। প্রশাসনের সাথে আলোচনার মাধ্যমে বাস্তব অবস্থা বিবেচনা করে লাইসেন্স প্রদান করা হবে। তবে কোন দালালের মাধ্যমে লাইসেন্স দেওয়া হবে না। তবে তিনি উলে­খ করেন, ইতোমধ্যে দালালরা ইজিবাইক চালকদের কাছ থেকে লাইসেন্স’র কথা বলে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন, এগুলো প্রতিহত করতে হবে।
অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের বিষয়ে সিটি মেয়র বলেন, ড্রেনের উপর অবৈধ স্থাপনা থাকায় নাগরিকরা স্বাচ্ছন্দে চলাফেরা করতে পারছেন না। আমার নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী নগরীর ফুটপাথ দখলমুক্ত করতে ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে কেসিসি। অচিরেই নগরীর ফুটপাথ দখলমুক্ত করা হবে।
জলাবদ্ধতার বিষয়ে সিটি মেয়র বলেন, নগরীর ২২টি খাল দখল হয়ে যাওয়ার কারণে খুলনাবাসী জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি পাচ্ছেন না। ২২টি খালের অবস্থান চিহ্নিত করে সেগুলোও দখলদারদের হাত থেকে উদ্ধার করা হবে। আর অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
সিটি মেয়র আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা অনুযায়ী দেশ থেকে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গি দূর করতে সরকার কাজ করছে। খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য সেখ সালাহউদ্দিন জুয়েলও চান খুলনাকে মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত করতে। ইতোমধ্যে খুলনার প্রশাসনকেও সে মোতাবেক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। খুলনায় মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে মাদক ব্যবসায়ী যে দলেরই হোক; তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানান তিনি।
তিনি বলেন, খুলনাকে উন্নত, জলাবদ্ধতামুক্ত একটি তিলোত্তমা নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন। এজন্য নগরীর উন্নয়নে নাগরিকদের এগিয়ে আসতে হবে। সচেতন নাগরিকরা এগিয়ে আসলে সবকিছু সঠিকভাবে সম্পন্ন হবে বলে তিনি জানান।
সংবাদ সম্মেলনে কেসিসি’র প্যানেল মেয়র-২ আলী আকবর টিপু, প্যানেল মেয়র-৩ মেমরী সুফিয়া রহমান শুনু, জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের সভাপতি এ্যাড. সাইফুল ইসলাম, কেসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পলাশ কান্তি বালা, সচিব মো. আজমল হক, খুলনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি এস এম হাবিব, সাধারণ সম্পাদক মো. সাহেব আলী, খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি এস এম জাহিদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহ আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.