করোনা : সর্বশেষ

শীতকালে ঘুরতে যাওয়ার উপযুক্ত কিছু জায়গা

শীতকালে সাধারণত স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকে। ভ্রমণের জন্যও শীতের আবহাওয়া বেশ উপযোগী। তাই শীতকালেই অনেকে ঘুরতে যাওয়ার প্লেন করে থাকেন। অনেকে হয়তো সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না শীতকালে  কোথায় ঘুরতে যাওয়া যায়। দেশের ভেতরেই ঘুরতে যাওয়ার উপযুক্ত কিছু জায়গা রয়েছে। জেনে নিন শীতকালে ভ্রমণ উপযোগী কিছু জায়গা সম্পর্কে।

মুজিবনগর

মেহেরপুর জেলায় অবস্থিত এটি একটি ঐতিহাসিত স্থান। বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকারের রাজধানী ছিল এখানে। এখানেই তৎকালীন বৈদ্যনাথতলা বর্তমান মুজিবনগরের আম্রকাননে ১৭ এপ্রিল সরকারের মন্ত্রিপরিষদ শপথ নিয়েছিল। বাংলাদেশের প্রথম রাজধানীর ঐতিহ্য ধরে রাখতে এখানে গড়ে তোলা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি কমপ্লেক্স।

স্মৃতিসৌধের প্রত্যেকটি স্তম্ভ ২৩ বছরের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রতীক হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। বিভিন্ন ভাস্কর্যের মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা মুক্তিযুদ্ধ আপনার নজর কাড়বেই।

বিছানাকান্দি

বাংলাদেশের পর্যটন কেন্দ্রের অন্যতম তীর্থস্থান সিলেট। বর্তমানে সেখানকার একটি পরিচিত জায়গা হল বিছানাকান্দি। সিলেটের সীমান্তঘেঁষা গোয়াইনঘাট উপজেলায় বিছানাকান্দির অবস্থান। সৌন্দর্যের সঙ্গে এর নামের যথার্থতাও আছে। এখানে এত পাথর ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে, আপনার মনে হতে পারে এ যেন পাথরের বিছানা। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের পাশাপাশি পানি আর পাথরের মেলা পর‌্যটকদের মুগ্ধ করবেই।

লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পার্ক

শীতকালে পর্যটকদের ভ্রমণ তালিকায় উপরের দিকে সিলেটের শ্রীমঙ্গল। এখানকার জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্রের একটি লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পার্ক। দেশের ট্রপিকেল রেইন ফরেস্ট হিসেবে খ্যাত এ পার্কটি বিনোদনের আকর্ষণীয় একটি স্পটে পরিণত হয়েছে।

বান্দরবানের বগা লেক

বান্দরবান শহর থেকে ৭০ কিলোমিটার দূরে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ পর্বত কেওক্রাডংয়ের গাঁ ঘেঁষে বগা লেকের অবস্থান। অন্যান্য সময়ের চেয়ে শীতকালেই এই জায়গা ভ্রমণের জন্য বেশি উপযোগী। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এর উচ্চতা প্রায় ২,০০০ ফুট। লেকের পাশাপাশি এর চারপাশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর লেকে যাওয়ার দুর্গম পথ পাড়ি দেওয়ার আনন্দটাই আলাদা।

সুন্দরবনের কাটকা বিচ

সুন্দরবনের বৈচিত্রময় স্থানগুলোর মধ্যে অন্যতম কাটকা বিচ। কাটকাতে ৪০ ফুট উচ্চ একটি টাওয়ার আছে যেখান থেকে সুন্দরবনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করা যায়। একটি সুন্দর সমুদ্র সৈকত আছে এখানে। পর্যবেক্ষণ টাওয়ার হতে ফেরার সময় হেঁটে বিচের সৌন্দর্য উপভোগ করা যায়। কাটকা থেকে কাচিখালী (বাঘের জায়গা) পর্যন্ত প্রচুর ঘাস জন্মে বলে অনেক জীবজন্তুর আনাগোনা রয়েছে। এখানে প্রচুর জীবজন্তও দেখা যায়। তথ্য ও ছবি: ইন্টারনেট।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!