শিরোমণি বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের পরিচালক অবরুদ্ধ, আন্দোলন ঘোষণা

 

পরিচালকসহ দু’জনের অপসারণের দাবি

 

খানজাহান আলী থানা প্রতিনিধি

খুলনার শিরোমণি বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের এ্যাডমিনিস্ট্রেটর মাহামুদুল হাসান তারিফ ফেন্সিডিলসহ আটকের ঘটনায় তাকে চাকুরীচ্যুত এবং হাসপাতালের পরিচালকের অপসারণসহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগে প্রতিষ্ঠানের ডাক্তার-কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা গতকাল সোমবার সকাল ৮টায় পরিচালক ডাঃ আঃ মান্নানকে অবরুদ্ধ করে রাখে।

পরে সকাল ১০টায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও হাসপাতালের ম্যানিজিং কমিটির সদস্যদের সুষ্ট সমাধানের আশ্বাসে কাজে ফিরে যায়। বেলা সাড়ে ১০টায় উভয় পক্ষের সাথে বৈঠক করেন ম্যানিজিং কমিটির সদস্যরা। এ সময় ম্যানিজিং কমিটির জনপ্রতিনিধি হালিমা ইসলাম মাহমুদুল হাসান এবং পরিচালকের পক্ষ নিয়ে উপস্থিত সাংবাদিকদের সাথে অসাদাচারণ করে তাদেরকে কক্ষ থেকে বের করে দেন।

হাসপাতালের এ্যাডমিনিস্ট্রেটর মাহামুদুল হাসান তারিফ ফেন্সিডিলসহ আটকের খবর পত্রিকায় প্রকাশের পর এবং মাদকদ্রব আইনের মামলায় মাহামুদ জেল হাজতে অবস্থান করায় ৮দিন অফিসে অনুপস্থিত থাকায় তার বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষ কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করায় হাসপাতালের সিনিয়র কনসাল্েটন্ট ডাঃ নজরুল ইসলাম, ডাঃ সাইফুর রহমানসহ প্রতিষ্ঠানের ডাক্তার-কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা সোমবার সকাল ৮টায় হাসপাতালের পরিচালকের কক্ষে প্রবেশ করে তাকে অবরুদ্ধ করে মাহমুদুল হাসানকে প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্ষুন্ন করার অপরাধে এবং প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতি চিত্র পরিচালকের কাছে তুলে ধরে অবিলম্বে মাহমুদুলকে চাকুরীচ্যুৎ করার দাবী জানালে পরিচালক তাদের দাবী না মানায় উপস্থিত সকলে পরিচালকের অপসারণ দাবী করেন।

এ বিষয়ে হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ আঃ হান্নান বলেন, উর্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া মাহমুদুলের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেওয়া সম্বব হচ্ছেনা।

উল্লেখ্য , এ্যাডমিনিস্ট্রেটর মাহামুদুল হাসান তারিফের সাথে কর্তৃপক্ষের সক্ষতা থাকায় ক্ষমতার দাপটে তিনি অনেকে চাকুরীচ্যুৎ সহ বিভিন্ন ভয়ভীতি প্রদর্শন করে অনৈতিক কার্যকলাপ করে আসছিল। গত ১০ জ্নু সন্ধ্যায় মোটরসাইকেলের সীটের নিচে এবং পকেটে করে ফেন্সিডিল নিয়ে খুলনায় আসার পথে অভয়নগর থানা পুলিশের হাতে আটক হয়ে জেল হাজতে গেলে তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম বেরিয়ে আসছে।

 

 

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *