May 15, 2024
জাতীয়লেটেস্ট

শপথ নেওয়ার পর সুলতান মনসুরকে গণফোরাম থেকে বহিষ্কার

দলের সিদ্ধান্তের বিপরীতে গিয়ে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেওয়ার পর সুলতান মো. মনসুর আহমেদকে বহিষ্কার করেছে গণফোরাম।

কামাল হোসেনের দল গণফোরামে সুলতান মনসুরের নাম সভাপতিমণ্ডলীর তালিকায় থাকলেও তিনি দাবি করে আসছেন, এই দলে তিনি যুক্ত নন।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের হয়ে বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী এক সময়ের আওয়ামী লীগ নেতা সুলতান মনসুর বৃহস্পতিবার শপথ নেন।

শপথ নেওয়ার পর তিনি সাংবাদিকদের বলেন, জোটের শীর্ষ নেতা অর্থাৎ কামাল হোসেনকে ‘জানিয়েই’ তিনি শপথ নিয়েছেন।

তার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে বিকালে মতিঝিলে দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসে সুলতান মনসুরকে গণফোরাম থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দলটির সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু বলেন, কামাল হোসেনের ‘নির্দেশেই’ এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

বহিষ্কারের পর সন্ধ্যায় সংসদ অধিবেশনে যোগ দেন সুলতান মনসুর। অধিবেশন কক্ষে স্পিকারের আসনের বাম পাশে বিরোধী দলের আসনের দ্বিতীয় সারিতে তাকে আসন দেওয়া হয়েছে।

সুলতান মনসুরকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটি থেকেও অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে বলে জানান মন্টু, যে জোটে গণফোরাম ছাড়াও রয়েছে বিএনপি, কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগ, জেএসডি ও নাগরিক ঐক্য।

একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে কামাল হোসেনের উদ্যোগে বিএনপিকে নিয়ে এই জোট গঠিত হয় এবং জোটের প্রায় সব প্রার্থী বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে অংশ নিয়েছিলেন।

সুলতান মনসুরও মৌলভীবাজার-২ আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী হন। তিনিসহ জোটের মোট আটজন জিতলেও হেরে যান বাকি সবাই।

ফল ঘোষণার পর ‘ভোট ডাকাতি’র অভিযোগ তুললেও কামাল হোসেন ঐক্যফ্রন্ট থেকে বিজয়ীদের শপথ নেওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। কিন্তু পরে বিএনপির অনড় অবস্থানের মধ্যে জোটের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচিত কেউ সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেবে না।

কিন্তু এর মধ্যে গণফোরামের হয়ে নির্বাচনে জিতে আসা সুলতান মনসুর ও মোকাব্বির খান শপথ নেওয়ার আগ্রহ জানিয়ে চিঠি দেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীকে।

শেষ মুহূর্তে মোকাব্বির দলের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় থেকে বৃহস্পতিবার সংসদ ভবনে না গেলেও সুলতান মনসুর গিয়ে শপথ নেন।

শপথ নেওয়ার ‘জয় বাংলা-জয় বঙ্গবন্ধু’ বলেন আওয়ামী লীগের সাবেক এই সংগঠনিক সম্পাদক, যিনি ২০০৭ সালে জরুরি অবস্থার সময় সংস্কারপন্থি হিসেবে চিহ্নিত হয়ে দলে অপাঙক্তেয় হয়ে পড়ার কয়েক বছর পর ভিড়েছিলেন আওয়ামী লীগেরই এক সময়ের নেতা কামাল হোসেনের সঙ্গে।

স্পিকারের কাছ থেকে শপথ নেন সুলতান মো. মনসুর

ধানের শীষ প্রতীকে ভোটে জয়ী হয়ে জোটের সিদ্ধান্ত অমান্য করে সুলতান মনসুর শপথ নেওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ঘটনাটিকে ‘ছলনা’ বলেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তার পরপরই দুপুরে কামাল হোসেন মতিঝিলে তার পেশাগত চেম্বারে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে নিয়ে বৈঠকে বসেন। তাতে মোকাব্বির হোসেন ও মন্টুও ছিলেন।

তারপর মতিঝিলে গণফোরাম কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসে সাধারণ সম্পাদক মন্টু বলেন, “সুলতান মনসুর সাহেব আমাদের গণফোরামের সদস্য ছিলেন। আমরা মনে করি যে, গণফোরামের যে গণমুখী নীতি, আদর্শ যেটার সাথে উনি প্রতারণা করেছেন এবং গঠনতন্ত্রের পরিপন্থি কাজ করেছেন।

“আমাদের কর্মসূচি, নিয়ম-কানুন, আদেশ-নির্দেশ অমান্য করে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে তিনি (সুলতান মনসুর) জাতীয় সংসদে সদস্য হিসেবে আজকে শপথ নিয়েছেন। এই জন্য দল, জনগণ ও ঐক্যফ্রন্ট সবাই মর্মাহত এবং ক্ষুব্ধ।

“আমরা সুলতান মো. মনসুরকে, যিনি মৌলভীবাজার-২ আসন থেকে নির্বাচিত হয়েছেন, তাকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করছি।”

সুলতান মনসুরের বিরুদ্ধে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়ার হুমকিও দিয়েছেন গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক, তবে কী ব্যবস্থা তা স্পষ্ট করা হয়নি।

গণফোরাম বহিষ্কার করলেও সুলতান মনসুরের সংসদ সদস্য হিসেবে টিকে থাকার ক্ষেত্রে তার কোনো প্রভাব না পড়ারই কথা।

কেননা সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদে বলা আছে- কেউ দল থেকে পদত্যাগ করলে কিংবা সংসদে দলের বিপক্ষে ভোট দিলে সদস্যপদ খারিজ হবে।

শীর্ষ নেতাকে জানিয়ে শপথ নেওয়ার বিষয়ে সুলতান মনসুরের বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করে মন্টু বলেন, “আজকে দুপুরে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আমি ও আমাদের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোকা্ব্বির সাহেব ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে তার সভাপতিত্বে বৈঠক করেছি। সেখানেই অব্যহতির এই সিদ্ধান্ত হয়েছে। সুতরাং এখানে আর কোনো অবকাশ থাকে না যে, উনি বলেছেন।”

৩০ ডিসেম্বর ভোটের পর সংবাদ সম্মেলন এবং সাম্প্রতিক গণশুনানিতে কামাল হোসেনের বক্তব্যের উল্লেখ করে গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক বলেন, “উনি এই নির্বাচন স্বীকারই করেননি, তাহলে তিনি কী করে প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত যে সংসদ, সেই সংসদে তাকে (সুলতান মনসুর) শপথ নিতে অনুমতি দেবেন?

“যেখানে ৮ জন জনগণের পক্ষে প্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছে আর বাকি ২৯২ জন সংসদ সদস্য হচ্ছেন ভোট ডাকাতদের সংসদ সদস্য। তাদের পক্ষে ড. কামাল হোসেন কী করে রায় দেবেন?”

‘চিনে উঠতে পারিনি’

সুলতান মনসুরের এই অবস্থান পরিবর্তনের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে এক সময়ের আওয়ামী লীগ নেতা মোস্তফা মহসিন মন্টু বলেছেন, তারা তাকে ‘চিনে উঠতে’ পারেননি।

সুলতান মনসুরকে জোটের প্রার্থী করাকে ভুল ছিল কি না- এ প্রশ্নে তিনি বলেন, “দেখুন আমি কিছু করার আগ পর্যন্ত কিন্তু বুঝতে পারবেন না আমার মনে ভেতরে কী আমি পোষণ করছি। আমার মনের ভেতরে যদি কোনো কালিমা থাকে, কোনো অভিসন্ধি থাকে, সেই ঘটনা ঘটানোর পর আপনার উপলব্ধিটা আসবে যে, বোধহয় না করলে আমরা পারতাম।

“আমাদের বেলা তাই হয়েছে। আমরা ঠিক চিনে উঠতে পারেনি।”

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *