রামপাল উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে আগ্রহী সেখ মোয়াজ্জেম হোসেন

রামপাল প্রতিনিধি
আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বাগেরহাট জেলার রামপাল উপজেলা থেকে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হতে আগ্রহী সেখ মোয়াজ্জেম হোসেন। তিনি বর্তমানে রামপাল উপজেলা পরিষদের ভাইচ চেয়ারম্যান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। পাশাপাশি তিনি রামপাল কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
রাজপথের এ নির্ভিক নেতার রয়েছে বণ্যার্ঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ার। ১৯৮৬ সালে রামপাল কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে তিনি ভিপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। সেই থেকে তার রাজনৈতিক পথচলা আনুষ্ঠানিক ভাবে শুরু। এরপর ১৯৮৮ সালে আবারও রামপাল কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ব্যাপক ভোটে পুনরায় ভিপি নির্বাচিত হন। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯২ সালে রামপাল উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০০৫সালে যখন বিরোধীদল ক্ষমতায়, তখন আওয়ামীলীগের দুঃসময়ে তিনি উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের হাল ধরেছিলেন এবং এ সংগঠনের সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০১৪ সালে আওয়ামী যুবলীগের এ নেতা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইচ চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দীতা করেন এবং কাউন্সিলরদের ভোটে দলের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হন এবং নির্বাচনে ৪৫হাজার ভোট পেয়ে ভাইচ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০১৭ সালে তিনি আবারও সম্মেলনের মাধ্যমে আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। দীর্ঘ সময়ে রাজপথে সরব উপস্থিতি আওয়ামী লীগের এ পরিক্ষিত নেতা রাজনৈতিক জীবনে বার বার কারাবরণ করেছেন।
এছাড়া অপারেশন ক্লিন হার্ট’র সময় বর্তমান খুলনা সিটি কর্রোরেশন’র মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক গ্রেপ্তার হলে তার মুক্তির দাবিতে খুলনার মিছিলের সময় তিনি শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন। তার গতিশীল নেতৃত্বে সমগ্র উপজেলায় আওয়ামী যুবলীগ এখন একটি শক্তিশালী সংগঠনে পরিনত হয়েছে এবং যে কোন জাতীয় আন্দোলনে যুবলীগ এখন গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখছে। রাজপথের এ নেতা খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক এবং বন, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার’র অত্যন্ত ¯েœহ ধন্য বলে জানা গেছে এবং তাদের অভিভাবাকত্বে অনুপ্রানীত হয়ে তিনি রাজনীতি করেন বলে জানান সেখ মোয়াজ্জেম হোসেন। তিনি সাধারন মানুষের কাছে সৎ এবং স্বচ্ছ ইমেজের অধিকারী বলে বিবেচিত। এছাড়া ইতিমধ্যে উপজেলা ভাইচ চেয়ারম্যান হিসেবে ন্যায় শালিশী সমাধানে তিনি ব্যপক সুনাম অর্জন করেছেন এবং তৃনমূল মানুষের কাছে তার ব্যপক গ্রহন যোগ্যতা রয়েছে বলে জানা গেছে। ত্যাগী এ নেতা তাই আগামীতে দলের মনোনয়ন প্রত্যাশা করেন। তার বিশ্বাস, এ বছর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দল তার কর্মের মূল্যায়ন করবে এবং তাকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে জনসাধারনরে সেবা করার সুযোগ করে দেবে।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.