রামপালে বিদ্যুৎ কেন্দ্র : ইউনেস্কোর বক্তব্য নিয়ে মিথ্যাচার করছে সরকার

খুলনায় প্রতিনিধি সভায় অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ

 

খবর বিজ্ঞপ্তি

প্রাণ-প্রকৃতি-পরিবেশ-মানুষ ও অর্থনীতি ধ্বংসের হাত থেকে দেশকে বাঁচাতে সুন্দরবন রক্ষায় সকল সচেতন মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহŸান জানিয়েছেন তেল-গ্যাস-খনিজসম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষার জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ। গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টায় খুলনা প্রেস ক্লাবের শহীদ হুমায়ুন কবির বালু মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত খুলনা-বাগেরহাট-সাতক্ষীরা জেলার প্রতিনিধিদের এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহŸান জানান।

কমিটির খুলনা জেলা শাখার আহŸায়ক ও সিপিবি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এস এ রশীদের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব ও ইউসিএলবি খুলনা জেলা সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য মোস্তফা খালিদ খসরুর পরিচালনায় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন সাবেক সংসদ সদস্য ও খুলনা পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান এড. মোঃ এনায়েত আলী, সিপিবি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও খুলনা জেলা সভাপতি ডাঃ মনোজ দাশ, সুন্দরবন রক্ষা জাতীয় কমিটি খুলনা জেলা আহŸায়ক এস এম শাহনওয়াজ আলী, সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের আহŸায়ক এড. কুদরত-ই-খুদা, কৃষক নেতা নিতাই গাইন, জনার্দ্দন দত্ত নাণ্টু, এড. শেখ আজাদ হোসেন বেলাল, ফররুখ হাসান জুয়েল, কাজী দেলোয়ার হোসেন, এইচ এম শাহাদাৎ, বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর মোহম্মদ মোড়ল, মিজানুর রহমান বাবু, এড. মোঃ বাবুল হাওলাদার, এম এ কাশেম, রুহুল আমিন, নিত্যানন্দ সরকার, সুখেন রায়, অধ্যাঃ সঞ্জয় সাহা, সত্যজিৎ গাইন, আফজাল হোসেন রাজু, শিক্ষক নেতা নিতাই পাল, আনিসুর রহমান মিঠু, সাংবাদিক মহেন্দ্র নাথ সেন, মাহবুবুর রহমান মোহন, কাজী মাহফুজুর রহমান মুকুল, এস এম ইকবাল হোসেন বিপ্লব, মাহবুব আলম বাদশা, রোমেল রহমান, জয়ন্ত মুখার্জী প্রমুখ।

সভায় অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ আরো বলেন, কয়লাভিত্তিক রামপাল প্রকল্পে পাশাপাশি এখন সুন্দরবনের ৪ কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে তেলভিত্তিক আর একটি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সুন্দরবনের কাছে দু’ শতাধিক মারাত্মক ক্ষতিকর কারখানা নির্মাণ করা হচ্ছে। ইউনেস্কো বলেছে, সুন্দরবনের ক্ষেত্রে পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ক্ষতিকর প্রভাব রামপালের চেয়েও ভয়াবহ হবে। দেশপ্রেমিক জনগণ, বিশেষজ্ঞ ও ইউনেস্কো সরকারকে এসব প্রকল্প বন্ধ করার কথা বললেও তা না করে সরকার উল্টো ইউনেস্কোর বক্তব্য নিয়ে মিথ্যাচার করছে। সরকার যথাযথ উদ্যোগ না নিলে বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা থেকে সুন্দরবনের নাম বাতিলের ঘোষণা দিয়েছে ইউনেস্কো। জাতীয় কমিটির নেতৃত্বে জনগনের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের সামনে সরকারের নৈতিক পরাজয় ঘটেছে। এখন প্রয়োজন চূড়ান্ত বিজয়ে লক্ষ্যে এ আন্দোলনকে আরও জোরদার করা।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.