যুক্তরাষ্ট্রের সাথে আলোচনায় ‘অনধিকারচর্চা’ করায় দ.কোরিয়ার সমালোচনা উ.কোরিয়ার

যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে আলোচনায় ‘অনধিকারচর্চা’ বন্ধ করতে পিয়ংইয়ং বৃহস্পতিবার দক্ষিণ কোরিয়াকে সতর্ক করে দিয়েছে। পারমাণবিক কর্মসূচি প্রশ্নে অচলাবস্থা সৃষ্টির প্রেক্ষাপটে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সিউলে আসার কয়েকদিন আগে তারা এ ব্যাপারে সিউলকে সতর্ক করলো। খবর এএফপি’র।
ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের মধ্যে গত ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় সম্মেলনের পর থেকেই পরমাণু সংক্রান্ত আলোচনা স্থবির হয়ে পড়ে। নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার বিনিময়ে উত্তর কোরিয়া তাদের পরমাণু কর্মসূচি পরিত্যাগে আগ্রহী হবে এ ব্যাপারে সমঝোতায় পৌঁছাতে তারা ব্যর্থ হওয়ায় এ অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।
উভয় পক্ষের যৎসামান্য যোগাযোগ রয়েছে। এমন প্রেক্ষাপটে ট্রাম্পের দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে-ইনের সঙ্গে বৈঠকের জন্য সপ্তাহান্তে সিউলে যাওয়ার কথা রয়েছে।
মুন বুধবার বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে ‘পর্দার আড়ালের আলোচনা’ অব্যাহত রয়েছে। তারা তৃতীয় সম্মেলনের প্রস্ততি নিয়ে কথা বলছে।
শীর্ষ স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে দেয়া লিখিত এক সাক্ষাতকারে তিনি আরো বলেন, ‘উত্তর কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে নানানভাবে সংলাপ অব্যাহত রয়েছে।’
সম্প্রতি সিউল উত্তর কোরিয়াকে ৮০ কোটি ডলার মূল্যের খাদ্য সাহায্য দিয়েছে।
কিন্তু উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বৃহস্পতির দক্ষিণ কোরিয়ার সমালোচনা করে বলেন, ‘মধ্যস্থতাকারী’ হিসেবে কাজ করার মাধ্যমে সিউল তাদের দেশকে শক্ত অবস্থানে দাঁড় করানোর চেষ্টা চালাচ্ছে।’
উত্তর কোরিয়ার সরকারি বার্তা সংস্থা কেসিএনএ পরিবেশিত এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, পারমাণুবিক কর্মসূচি নিয়ে আলোচনায় ‘সরাসরি পক্ষ’ হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়া। এক্ষেত্রে দক্ষিণ কোরিয়া সরকারের অনধিকারচর্চা কোনভাবেই কাম্য না।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.