মেঘনায় অভিযানে গিয়ে ম্যাজিস্ট্রেট ও মৎস্য কর্মকর্তা হামলার শিকার

 

 

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক

চাঁদপুরে মেঘনায় ইলিশ রক্ষা অভিযানে গিয়ে এক ম্যাজিস্ট্রেট ও এক মৎস্য কর্মকর্তা জেলেদের হামলার শিকার হয়েছেন। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল­াহ আল মাহমুদ জামান জানান, বৃহস্পতিবার রাতে মেঘনা নদীর কাটাখালি অংশে এ ঘটনায় তিনি নিজে এবং ফরিদগঞ্জ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মিজানুর রহমান আহত হন। ভ্রাম্যমাণ আদালতের এ অভিযানে ১৭ জেলেকে জেল-জরিমানা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

ইলিশ অভয়াশ্রম কর্মসূচির আওতায় জাটকা রক্ষায় চাঁদপুরের মেঘনা নদীর ৭০ কিলোমিটার এলাকায় মার্চ-এপ্রিল দুই মাস ইলিশসহ সব ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ করেছে সরকার।

আল মাহমুদ বলেন, মা ইলিশ শিকার বন্ধে কাটাখালি এলাকায় মেঘনা নদীতে কোস্টগার্ড, লৌহজং পুলিশ ও উপজেলা মৎস্য অফিসের কর্মকর্তারা ট্রলার ও স্পিডবোটে করে টহল দিচ্ছিল। এক পর্যায়ে জেলেরা তাদের লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়ে মারে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে নৌ-পুলিশ ও কোস্টগার্ড সদস্যর রাবার বুলেট ছোড়ে বলে জানান তিনি।

আল মাহমুদ বলেন, মেঘনা নদীতে মাছ ধরার অপরাধে রাতেই ১৭ জেলেকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যামণ আদালত বসিয়ে ১৩ জেলেকে এক  বছর করে কারাদণ্ড এবং বাকিদের অর্থদণ্ড দেন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোরশেদুল ইসলাম ।

অভিযানে ৬৩টি মাছ ধরার নৌকা আটক করে সেগুলো ব্যবহারের অনুপযোগী করা হয়। পাঁচটি মাছের আড়ত আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হয়। এছাড়া ১ মণ জাটকা ও পৌনে ৪ লাখ মিটার কারেন্ট জাল জব্দ করা হয় বলে জানান তিনি।

 

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.