মওদুদের দুর্নীতি মামলা চলবে

 

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক

জ্ঞাত আয়ের বাইরে সম্পদের মালিক হওয়া এবং সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে দুদকের মামলার কার্যক্রম স্থগিত চেয়ে বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ যে আবেদন করেছিলেন, হাই কোর্ট তা সরাসরি খারিজ করে দিয়েছে। বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামানের হাই কোর্ট বেঞ্চ সোমবার এ আদেশ দেয়।

এই আদেশের ফলে বিচারিক আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণ পর্যায়ে থাকা মামলাটি চলতে কোনো বাধা থাকল না বলে জানিয়েছেন দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। সোমবার আদালতে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ নিজেই তার আবেদনের ওপর শুনানি করেন। তার সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী আবদুল­াহ আল মাহমুদ।

জরুরি অবস্থার সময় ২০০৭ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর দুদকের উপ-পরিচালক শরিফুল হক সিদ্দিকী গুলশান থানায় মওদুদের বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করেন। পরের বছর ১৪ মে আদালতে অভিযোগপত্র দেন দুদকের উপ-পরিচালক শরিফুল হক সিদ্দিকী।

সেখানে বলা হয়, ২০০৭ সালের ২৩ জুলাই দুর্নীতি দমন কমিশনে জমা দেওয়া সম্পদের হিসাব বিবরণীতে মোট ৪ কোটি ৪০ লাখ ৩৭ হাজার ৩৭৫ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন করেন বিগত চার দলীয় জোট সরকারের মন্ত্রী মওদুদ। এছাড়া তার নামে ৭ কোটি ৩৮ হাজার ২৩৭ টাকার সম্পদের তথ্য পাওয়া যায়, যা তার ঘোষিত আয়ের তথ্যের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। আদালতের স্থগিতাদেশে দীর্ঘ এক দশক আটকে থাকার পর গতবছর ২১ জুন এ মামলায় মওদুদ আহমদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়।

খুরশীদ আলম খান সাংবাদিকদের বলেন, মামলাটি এখন ঢাকার ৬ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে। বেশ কয়েকজনের সাক্ষ্যও নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে গত ৩১ মার্চ মওদুদ আহমদ মামলার কার্যক্রম স্থগিতের জন্য আবেদন করেন। আবেদনে তিনি বলেছিলেন, হাই কোর্টে তার ফিনানশিয়াল বিষয়ে মামলা আছে। সেগুলোর নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত এ মামলার কার্যক্রম যেন বন্ধ রাখা হয়।

গত ৪ মার্চ বিচারিক আদালত এ আবেদন নাকচ করলে তিনি হাই কোর্টে আবেদন করেন। গতকাল হাই কোর্ট সরাসরি খারিজ করে দিয়েছে। ফলে এই মামলার কার্যক্রম চলমানই থাকছে। মামলার অভিযোগ গঠন চ্যালেঞ্জ করে এবং আদালত পরিবর্তন চেয়ে এর আগেও কয়েকবার হাই কোর্টে এসেছেন মওদুদ। প্রতিবারই তার আবেদন খারিজ হয়ে গেছে।

 

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.