ভুল প্রশ্নে পরীক্ষার খাতা আলাদাভাবে মূল্যায়ন হবে : শিক্ষামন্ত্রী

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক
এসএসসি পরীক্ষার প্রথম দিন দেশের বিভিন্ন জেলার ১৮ কেন্দ্রে ভুল প্রশ্নপত্রে যে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে, তাদের খাতা আলাদাভাবে মূল্যায়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।
গতকাল রবিবার সংসদে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছেন, যাদের ভুলের কারণে এই ঘটনা ঘটেছে, ইতোমধ্যে তাদের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
শনিবার এসএসএসির প্রথম দিন ছিল বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষা। কিন্তু চট্টগ্রাম, জামালপুর, নওগাঁ, শেরপুর, সাতক্ষীরা, মুন্সীগঞ্জ, গাইবান্ধা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, বাগেরহাট ও মাদারীপুরে মোট ১৮টি কেন্দ্রে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেওয়া হয় পুরোনো পাঠ্যক্রমের ভিত্তিতে অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের জন্য তৈরি প্রশ্নপত্র দিয়ে।
রবিবার সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে জাতীয় পার্টির মুজিবুল হক চুন্নুর একটি সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আগের বার অকৃতকার্য যারা পরের বার পরীক্ষা দেয়, তাদের প্রশ্নপত্র তাদের সময়ের সিলেবাসের ভিত্তিতেই করা হয়। যারা নিয়মিত, তাদের প্রশ্নপত্র হয় নতুন সিলেবাস অনুযায়ী। নিয়মিত ও অনিয়মিতদের প্রশ্নপত্র আলাদাভাবেই যায়।
নির্দেশনা থাকে, পরীক্ষার হলে নিয়মিত ও অনিয়মিতরা ভিন্ন জায়গায় বসবে, যাতে সহজে তাদের মাঝে প্রশ্নপত্র বিতরণ করা যায়। যে কেন্দ্রগুলোতে সমস্যাটা হয়েছে, সেখানে কেন্দ্র সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের ভুলের কারণে এই ঘটনাটি ঘটেছে।
মন্ত্রী বলেন, ওই সব কেন্দ্রে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের মধ্যে যাদের অনিয়মিতদের প্রশ্নে পরীক্ষা দিয়েছে, তাদের চিহ্নিত করা হয়েছে। তাদের খাতা ভিন্নভাবেই দেখা হবে, যাতে কোনোভাবেই তারা ক্ষতিগ্রস্ত না হয়।
চুন্নু তার সম্পূরক প্রশ্নে ভুল প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নেওয়ার প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ১৮টি কেন্দ্রের কয়েকশত নিয়মিত ছাত্রকে অনিয়মিত ছাত্রদের সিলেবাসের প্রশ্ন দেওয়া হয়েছে। ওই সিলেবাসে পরীক্ষা নেওয়ার জন্য তারা প্রস্তুতি নেয়নি। ঘটনায় কয়েকজন কেন্দ্র সচিবকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এতে তো সমস্যার সমাধান হবে না। এতগুলো জায়গায় এই ভুলটা কেন হল, কে দায়ী? আর এই ছেলেমেয়েদের ভবিষ্যৎ কী হবে? সারা দেশের মানুষ এটি জানার জন্য অপেক্ষায় আছেন।
ওই শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা আবার নতুন করে নেওয়ার বিষয়ে জাতীয় পার্টির সাংসদ ফখরুল ইমামের প্রশ্নের উত্তরে দীপু মনি বলেন, আবার পরীক্ষা নিলে তো অন্য যারা পরীক্ষা দিয়েছে, তারা পরীক্ষা দিতে পারল না। কারণ, সেই প্রশ্নে তো ইতোমধ্যে পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। কাজেই নতুন পরীক্ষা হলেও ভিন্ন প্রশ্নে তাদের পরীক্ষা দিতে হবে। সেখানেও কিন্তু সমান মানদণ্ড দেয়া যাবে না। ঘটনার বাস্তবতায় সব থেকে ভালো সমাধানটিই আমরা বেছে নেয়ার চেষ্টা করেছি। এর থেকে ভালো, যুক্তিযুক্ত ও একই মানদণ্ড বজায় রেখে অন্য কিছু করার পরামর্শ থাকলে সেটা আমাদের দেয়া হলে বিবেচনা করা হবে।
মন্ত্রী বলেন, নিয়মিত আর অনিয়মিতদের সিলেবাস পুরোপুরি ভিন্ন নয়, ভিন্নতা আছে সিলেবাসের খানিকটা যায়গায়। পরীক্ষায় যেসব প্রশ্ন এসেছে, তার একটি অংশ নিয়মিত শিক্ষার্থীদের সিলেবাসের ভেতরেই ছিল।
আওয়ামী লীগের এমপি নুরুন্নবী চৌধুরীর প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষকতা পেশায় আকৃষ্ট করতে জাতীয় শিক্ষানীতির আলোকে শিক্ষকদের জন্য পৃথক বেতন কাঠামো প্রণয়নের বিষয়টি সরকারের পরিকল্পনায় রয়েছে। স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিকেল সাড়ে ৪টায় সংসদের রোববারের বৈঠক শুরু হয়।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.