পর্নোগ্রাফির ফাঁদে ২ লাখ ডলার খুইয়ে মা-বাবাকে হত্যা

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক
পর্নোগ্রাফিতে আসক্তি মানুষকে কী রকম বিপদের মুখে ঠেলে দিতে পারে তার সবথেকে বড় উদাহরণ আমেরিকার অরল্যান্ডোর বাসিন্দা গ্রান্ট আমাতো। ২৯ বছরের গ্রান্ট আমাতো উত্তর-পূর্ব অরল্যান্ডোর গ্রামীণ এলাকায় বাবা-মা ও ভাইয়ের সঙ্গে বাস করতেন। অনলাইন স্ট্রিমিং পর্নোগ্রাফিক সাইটের চক্করে দুই লাখ ডলার খুইয়ে বাবা-মা ও ভাইকে খুন করলেন তিনি।
স্কুল থেকে বিতাড়িত হওয়ার পর চাকরি নিয়েছিলেন আমাতো। কিন্তু সেটাও বেশিদিন টেকেনি। বাধ্য হয়েই বাড়িতে বসে দিন কাটছিল তার। আর বাড়িতে বসে থাকতে থাকতেই পর্নোগ্রাফির ভূত বাসা বেঁধেছিল তার মনে।
‘ক্যাম গার্ল’ নামে একটি পর্নোগ্রাফিক লাইভ স্ট্রিমিং ওয়েবসাইটে তার সঙ্গে আলাপ হয় বুলগেরিয়ায় এক নারীর সঙ্গে। সেই নারীর সঙ্গে লাইভ ক্যামে যোগাযোগ রাখার চক্করে তিনি খরচ ফেলেন ২ লাখ মার্কিন ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ১ কোটি ৬৭ লাখ টাকা। তবে এই গোটা টাকাটাই তিনি খরচ করেছেন পরিবারের সদস্যদের অ্যাকাউন্ট থেকে চুরি করে।
প্রথমে বাবা-মায়ের অ্যাকাউন্ট থেকে দেড় লাখ ডলার তুলে নেন তিনি। তারপর তার ভাইয়ের ব্যক্তিগত বন্দুক চুরি করে বিক্রি করে দেন তিনি। তাতেও ক্ষান্ত হননি তিনি। নিজেদের বসত বাড়ি বন্ধক রেখে ৬৫ হাজার ডলার ঋণ নেন তিনি।
স¤প্রতি তার সমস্ত কীর্তিকলাপ ধরা পড়ে যায় পরিবারের লোকের কাছে। তখন তিনি মা-বাবা ও ভাইকে গুলি করে খুন করেন। আপাতত পুলিশ আমাতোকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ চালাচ্ছে। চাকরি হারিয়ে ঘরে থাকতে থাকতে আমাতো মানসিক রোগী হয়ে গিয়েছিলেন বলে দাবি করেছেন আমাতোর আইনজীবী।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *