July 22, 2024
জাতীয়লেটেস্ট

তৃতীয় ধাপে ১১৭ উপজেলায় ভোট আজ, কঠোর ইসি

 

 

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক

তৃতীয় পর্যায়ে দেশের ১১৭ উপজেলা পরিষদের নির্বাচন আজ রোববার। এদিন, সাত বিভাগের ২৫ জেলায় এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান এই তিনটি পদে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও আওয়ামী লীগ ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদ দুটিতে দলীয় মনোনয়ন না দিয়ে উন্মুক্ত রেখেছে। এদিকে, নির্বাচন উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, তৃতীয় পর্যায়ে সাত বিভাগের ২৫ জেলার ১১৭টি উপজেলায় ১ হাজার ৩৭৬ জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৩৫৮ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬০৪ জনএবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪১৪ জন।

অন্যদিকে, এসব উপজেলায় মোট ভোটার ২ কোটি ৪৭ লাখ ৫৩ হাজার ১৪৮ জন। কেন্দ্র সংখ্যা ১০ হাজার ১৮টি। তৃতীয় পর্যায়ের নির্বাচনে কয়েকটি উপজেলায় ইভিএম ব্যবহার করবে নির্বাচন কমিশন।

উপজেলা নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে করতে নির্বাচনের আগের দুইদিন, নির্বাচনের দিন এবং নির্বাচনের পরের দুইদিনসহ মোট পাঁচদিন নির্বাচনী এলাকায় অতিরিক্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন থাকছে। নির্বাচনের দিন প্রতিটি সাধারণ কেন্দ্রে ১৪ জন এবং ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে ১৬ জন করে আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্য মোতায়েন থাকবে।

ইসির সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, তৃতীয় ধাপে ১২৭টি উপজেলার তফসিল ঘোষণা করা হলে এর মধ্যে ছয়টি উপজেলার সবপদে বিনা প্রতিদ্ব›িদ্বতায় নির্বাচিত হওয়ায় সেখানে ভোট হবে না। এছাড়া, এই পর্যায় থেকে কক্সবাজার সদর ও নরসিংদী সদরের ভোট চতুর্থ পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে এবং উচ্চ আদালতের নির্দেশনায় কক্সবাজারের কুতুবদিয়া ও চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার ভোট স্থগিত রয়েছে।

এদিকে তৃতীয় ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের আগমুহূর্তে কঠোর অবস্থানের কথা জানালো নির্বাচন কমিশন (ইসি)। নির্বাচনে যেকোনও ধরনের অনিয়ম ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঠেকাতে অতিরিক্ত ফোর্স মোতায়েনের কথা জানিয়েছে সাংবিধানিক এই প্রতিষ্ঠান। এরই মধ্যে নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগে চট্টগ্রামের লোহাগড়া, যশোরের কেশবপুর ও রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করেছে ইসি। একইসঙ্গে তৃতীয় ধাপের এই ভোটের আগে চার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকেও (ওসি) প্রত্যাহার করা হয়েছে। গতকাল শনিবার নির্বাচনপূর্ব এক সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ এসব তথ্য জানান।

নির্বাচনের বিষয়ে কমিশন খুবই কঠোর অবস্থানে রয়েছে দাবি করে হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, ‘যেখানেই আইনশৃঙ্খলাবাহিনী ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাচ্ছি ওইসব উপজেলা থেকে আমরা তাদের তাৎক্ষণিকভাবে প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলকব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কোনও অভিযোগ প্রাথমিক তদন্তে সত্য প্রমাণিত হলে আমরা তাদের প্রত্যাহার করছি। ইতোমধ্যে আমরা তিনজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করেছি। বেশ কিছু ওসি ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদমর্যাদার কর্মকর্তাকেও দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়েছি।’ এই ধাপে মাদারীপুরের রাজৈর, চট্টগ্রামের লোহাগড়া এবং চাদঁপুরের ফরিদগঞ্জ ও কচুয়ার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

 

 

 

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *