ঠাণ্ডা নিরাময়ে ঘরে বসেই নিজের ওষুধ তৈরি করে ফেলুন !

আপনার যদি ঠান্ডা লাগে তবে আপনি এক থেকে দুই সপ্তাহ অসুস্থ হতে পারেন। এর জন্য আপনি হতাশ গ্রস্থ হবেননা। পর্যাপ্ত বিশ্রাম পাওয়ার পাশাপাশি, এই প্রতিকারগুলি আপনাকে আরও ভাল বোধ করতে সহায়তা করতে পারে:

হাইড্রেটেড থাকুন: মধু দিয়ে গরম পানি, জুস, পরিষ্কার ব্রথ বা উষ্ণ লেবু পানি ঠাণ্ডা কে হ্রাস করতে এবং ডিহাইড্রেশন প্রতিরোধে সহায়তা করে। অ্যালকোহল, কফি এবং ক্যাফিনযুক্ত সোডা এড়িয়ে চলুন, যা ডিহাইড্রেশনকে আরও খারাপ করে তুলতে পারে। বিশ্রাম। আপনার শরীরের নিরাময়ের জন্য বিশ্রাম প্রয়োজন।

গারগেল করবেন: গলায় গরম কিছু গেলে বিশেষ করে লবন পানি দিয়ে গারগেল করলে তা গলা ব্যাথা ও গলা থেকে ভাইরাস কমাতে অনেক সাহায্য করে ।

নাকের জন্য ড্রপার ব্যাবহার করুন: কোন ফার্মেসিতে যেয়ে ঠাণ্ডার কথা বলে নাক বন্ধের জন্য Over-the-counter ড্রপার ব্যাবহার করতে পারেন ।

হানি-জিনজার টি: অনেক প্রাচীন একটি রেসিপি এটি। ঠাণ্ডা কমাতে যথেষ্ট পালন করে হানি জিনজার টি। এক কাপ হাল্কা গরম পানিতে এক চামুচ মধু গুলিয়ে এতে অল্প একটু আদার রস দিয়ে ভালো ভাবে নেড়ে চুমুক দিয়ে খেয়ে ফেলুন ঝটপট ! দিনে এক থেকে দুবার খেলে কার্যকারী উপকার পাবেন।

গলার জন্য আদা: আদার অনেক ভেষজ গুনাবলির একটা হচ্ছে এইটা ঠাণ্ডা গলায় অনেক কাজে আসে, বিশেষ করে কাশির জন্য। এই জন্য যখনি কাশি পাবেন মুখে অল্প একটু আদা গুজে ফেলুন !

গরম তরলে চুমুক দিন: অনেক সংস্কৃতিতে ঠান্ডার প্রতিকার হিসেবে চিকেন স্যুপ, চা বা উষ্ণ আপেল জুস এবং উষ্ণ তরল(যেমন চা কফি) ব্যাবহৃত হয় এবং এগুলো মিউকাস প্রবাহ বৃদ্ধি করে নাক সহজ করে। 

ঠাণ্ডার জন্য আমরা অনেকে অ্যান্টিবায়োটিক গ্রহন করে থাকি, আসলে এটা অতটাও কার্যকারী না। সুতরাং প্রাথমিক ভাবে চেষ্টা করুন ঘরে বসে ঠাণ্ডা কমাতে, না হলে ডাক্তার তো আছেই ! 

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.