টেকনাফে আনসার ক্যাম্পে হামলার আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক

কক্সবাজারের টেকনাফে তিন বছর আগে নয়াপাড়া রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের আনসার ক্যাম্পে হামলার এক আসামি র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। র‌্যাব-১৫ ব্যাটালিয়ানের টেকনাফ ক্যাম্পের কমান্ডার লেফটেন্যান্ট মির্জা শাহেদ মাহতাব জানান, উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের দমদমিয়া এলাকায় শুক্রবার ভোরে ওই গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। নিহত নুরুল আলম (৩৫) টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এইচ ব্লকের মোহাম্মদ হোসেন ওরফে লাল বুইজ্জ্যার ছেলে।

২০১৬ সালের ১৩ মে ভোরে নয়াপাড়ার মুচনী এলাকার নিবন্ধিত রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্পের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা আনসার ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে ক্যাম্পের কমান্ডার মো. আলী হোসেনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। লুট করা হয় ১১টি বিভিন্ন ধরনের আগ্নেয়াস্ত্র ও ৬৭০ রাউন্ড গুলি।

ঘটনার পরদিন অজ্ঞাতপরিচয় ৩০/৩৫ জনের বিরুদ্ধে টেকনাফ থানায় মামলা করেন আনসার ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার মো. আলমগীর হোসেন। র‌্যাব বলছে, নুরুল আলম ওই মামলার এজাহারভুক্ত আসামি। ঘটনার পর থেকে তিনি পলাতক ছিলেন। এছাড়া সে ছিল রোহিঙ্গা ডাকাত দলের শীর্ষ নেতা; রোহিঙ্গাদের সংগঠিত করে ডাকাতিসহ নানা অপরাধ করত, বলেন লেফটেন্যান্ট মির্জা শাহেদ।

তিনি বলেন, ভোরে দমদমিয়া এলাকায় ‘কিছু সন্ত্রাসী’ জড়ো হওয়ার খবরে সেখানে অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় সন্ত্রাসীরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়লে র‌্যাবও পাল্টা গুলি করে। এক পর্যায়ে ঘটনাস্থলে একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়।

তাকে উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন বলে র‌্যাবের এ কর্মকর্তা জানান। ঘটনাস্থল থেকে দু্টি পিস্তল, দুটি ম্যাগাজিন ও ১৩টি গুলি উদ্ধারের কথা জানিয়েছে র‌্যাব।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.