ঝিনাইদহে সংরক্ষিত মহিলা এমপি পদে আলোচনায় খালেদা খানম

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত মহিলা আসনে ঝিনাইদহের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিতে মহিলা সংসদ সদস্য হিসেবে জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদিকা খালেদা খানম ঝিনাইদহ জেলা বাসী চান। সুবিধা বঞ্চিত নারী সমাজকে এগিয়ে নিতে বর্তমান সময়ে খালেদা খানম এর বিকল্প নেই।গরীব দুঃখী মানুষের প্রাণের নেত্রী ঝিনাইদহের কৃতি সন্তান গণমানুষের প্রিয় মুখ নারী জাগরণ নারী আন্দোলনের অগ্নিকন্যা। তিনি হরিনাকুন্ডু উপজেলার মাঠ আন্দুলিয়া মৃত গোলাম রহমানের কন্যা ও জেলা শহরের বনানী পাড়ার আওয়ামী লীগ নেতা মৃত দুদু মিয়ার বিটার বউ এবং বর্তমান খন্দকার পাড়ার বসবাস করেন। ২০০১ সালে উদ্ভাবনী নার্সারীর উপর প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক জাতীয় পুরষ্কার স্বর্ণপদক পায়। ২০০৫ সাল থেকে বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদিকার দ্বায়ীত্ব সফলভাবে পালন করছেন খালেদা খানম। ২০০৯ সাল থেকে বাংলাদেশ মহিলা সংস্থা জেলা শাখার চেয়ারম্যানের দায়িত্ব সফলভাবে পালন করছেন। ২০১০ সাল থেকে ঝিনাইদহ জেলা নার্সারী মালিক কল্যান সমিতির সাধারন সম্পাদক। ২০১০ সাল থেকে জাতীয় আইন সহায়তা কমিটির সদস্য হওয়ায় সাফল্যের সাথে দায়ীত্ব পালন করছেন। ২০১৮ সালে সিনিয়র সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে চরিত্রহীন বলে কলংকিত ও অপমানিত করায় আমি ব্যারিষ্টার মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে পাঁচশত কোটি টাকার মানহানি মামলা করি।

একান্ত সাক্ষাতকারে এ প্রতিবেদকের সাথে তিনি বলেন, বর্তমানে আমার প্রাণপ্রিয় জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখতে আমি আমার ছাদে একটি সফল ছাদকৃষি গড়ে তুলেছি। তিনি বলেন, অতীত ও বর্তমান রাজনীতি ও সামাজিক কর্মকান্ডে আমার যথেষ্ট ভূমিকা আছে।

তিনি ইতিমধ্যে শত শত উঠান বৈঠকের মাধ্যমে জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড ও সাফল্য নারী সমাজের কাছে তুলে ধরে নারীদেরকে সুসংগঠিত করে নারী জাগরণের দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন এবং তিনিই জনপ্রিয়তায় শির্ষে রয়েছেন। আর তাই ঝিনাইদহের নারী সমাজের ভাগ্যোউন্নয়নে একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে মহিলা এমপি হিসেবে চাই এমনটাই প্রত্যাশা ঝিনাইদহ জেলাবাসীর। এটাই ঝিনাইদহ বাসী একমাত্র প্রাণের দাবী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.