চারদিনে ৭৬ গোডাউনে গ্যাস-বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন, আটটিতে পুনঃসংযোগ

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক
ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) টাস্কফোর্সের অভিযানে ঝুঁকিপূর্ণ দাহ্য পদার্থ পাওয়ার অভিযোগে গতকাল সোমবার পুরান ঢাকায় ২৯টি কেমিক্যাল ও প্লাস্টিক গোডাউনের গ্যাস ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। এ নিয়ে পুরান ঢাকায় গত চারদিনে ৭৬টি গোড়াউনের গ্যাস-বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হলো। এছাড়া ঝুঁকিপূর্ণ দাহ্য পদার্থ সরিয়ে নেওয়ায় আটটি কারখানায় গ্যাস-বিদ্যুতের পুনঃসংযোগ দেওয়া হয়েছে। অভিযানে তাঁতিবাজার এলাকায় সাতটি, হরনাথ ঘোষ ও নন্দকুমার দত্ত রোডে আটটি, হাজারীবাগের নীলাম্বর এবং মনেস্বর রোড এলাকায় আটটিসহ মোট ২৯টি গোড়াউনের পরিষেবা বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়।
জানা গেছে, পুরান ঢাকায় রাসায়নিক গুদামে ক্ষতিকর ও ঝুঁকিপূর্ণ দাহ্য পদার্থ পাওয়ার অভিযোগে গত চারদিনে পৃথক অভিযানে ৭৬টি গোড়াউনের গ্যাস ও বিদ্যুৎ পরিষেবার সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। এর মধ্যে থেকে ১৫টি কারখানার মালিক কারখানায় পুনরায় গ্যাস-বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে ডিএসসিসি মেয়র সাঈদ খোকন বরাবর আবেদন করেন। এতে আটটি কারখানায় পুনঃসংযোগ দেওয়া হয়।
গত চারদিন ধরে টাস্কফোর্সের অভিযানে পানি, বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা গোড়াউনগুলোর মধ্যে ১৫টি কারখানার মালিক পরিষেবা সংযোগ ফিরে পেতে মেয়র বরাবর আবেদন করেন। আবেদনে হোল্ডিং মালিকরা জানিয়েছেন, তাদের গোড়াউনে ঝুঁকিপূর্ণ দাহ্য পদার্থ নেই। বিষয়টি পরীক্ষা করে মেয়রকে ব্যবস্থা নেওয়া জন্য অনুরোধ জানানো হয়।
আবেদনের পরে টাস্কফোর্স কমিটি যাচাই করে আটটি গোড়াউনে পরিষেবার পুনঃসংযোগ দিয়েছে। এছাড়া আরও সাতটি আবেদন প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিএসসিসি।
এ বিষয়ে ডিএসসিসির প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা মো. জাহিদুর রহমান বলেন, ‘পরিষেবা সংযোগ বিছিন্ন করা গোড়াউন মালিকরা ক্ষতিকর দাহ্য পদার্থ সরিয়ে নিয়ে আমাদের কাছে আবেদন করেন। এরপর আমরা পুনরায় তাদের সংযোগ ফিরিয়ে দিচ্ছি এবং সবাইকে সর্তক করা হচ্ছে। ১ এপ্রিল পর্যন্ত টাস্কফোর্সের এ অভিযান চলবে। যদি কেউ এর মধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ দাহ্য পদার্থ সরিয়ে না নেয় তাহলে আমরা আইনের কঠোর প্রয়োগ করবো।’

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.