খুলনায় ১৯২০ জন শিশু বঙ্গবন্ধুর কণ্ঠে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ

মুজিববর্ষের ক্ষণগণনার প্রথম প্রহর উদযাপন

 

দ: প্রতিবেদক

বর্ণাঢ্য আয়োজন, বিপুল উপস্থিতি ও দেশপ্রেমে উজ্জীবিত জনতার বাঁধভাঙা উচ্ছ¡াসে বিভাগীয় শহর খুলনায় হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাংলাদেশের মহান স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর কাউন্টডাউন ও প্রথম প্রহরে মুজিববর্ষের অনুষ্ঠান গতকাল শুক্রবার সকালে খুলনা জেলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। এসময় ১৯২০ জন শিশু বঙ্গবন্ধু, ১৯২০ জন আলেম ও সহস্রাধিক মুক্তিযোদ্ধার কন্ঠে বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চের ভাষণ গভীর আবেগ ও ভাবগম্ভীর আবহের জন্ম দেয়। অনুষ্ঠানে স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে সোনার বাংলা গড়ার শপথ পাঠ করান বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুস্পুত্র সেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল। ১৭ জন আলেমের সমন্বয়ে পরিচালিত বিশেষ দোয়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ১৫ আগস্ট ১৯৭৫-এ তাঁর পরিবারের শহিদ সদস্য এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে ৩০ লক্ষ শহিদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়। দোয়ায় বাংলাদেশের কল্যাণে  বঙ্গবন্ধুর অবদানকে স্মরণের পাশাপাশি দেশ ও জাতির কল্যাণ ও সমৃদ্ধি কামনা করা হয়।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস বিবেচনায় নিয়ে খুলনা জেলা প্রশাসনের আয়োজনে ও ‘চাইল্ড ইন্টিগ্রিটি ও শিশু বঙ্গবন্ধু ফোরাম’-এর ব্যবস্থাপনায়  এ দিনের অনুষ্ঠানসমূহের মধ্যে ছিলো খুলনা জেলা স্টেডিয়ামে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে তোপধ্বনির মাধ্যমে ‘কাউন্টডাউন প্রথম প্রহরে মুজিববর্ষ’ সূচনা, বঙ্গবন্ধুর ওপর ডকুমেন্টরি প্রদর্শন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ ও জাতীয় সংগীত পরিবেশন। খুলনার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ‘শিশু বঙ্গবন্ধু ফোরাম’-এর শিক্ষার্থীরা, বিভিন্ন মসজিদ-মাদ্রাসার ইমাম, মুয়াজ্জিন, শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং অন্যান্য ধর্মের অনুসারীরা সংশ্লিষ্ট অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য সেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল, খুলনা-৬ আসনের সংসদ সদস্য মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু, খুলনার বিভাগীয় কমিশনার ড. মুঃ আনোয়ার হোসেন হাওলাদার, খুলনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবির, খুলনা রেঞ্জ ডিআইজি ড. খঃ মহিদ উদ্দিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা, সরকারি কর্মকর্তা, রাজনীতিবিদ, সামাজিক সাংস্কৃতি সংগঠনের নেতৃত্ববৃন্দ, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও সর্বস্তরের মানুষ বিপুল উৎসাহ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন।

 

 

 

 

 

 

 

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.