কেনিয়ায় মার্কিন ঘাঁটিতে সন্ত্রাসী হামলা

ইরানের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তি কাসেম সোলেমানিকে হত্যার ঘটনায় চলমান উত্তেজনার মধ্যে কেনিয়ায় একটি সামরিক ঘাঁটিতে হামলার ঘটনা ঘটেছে। দেশটির লামু কাউন্টির ওই ঘাঁটিতে কেনিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তাদের লক্ষ্য করে ওই হামলা চালানোর দায় স্বীকার করেছে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আল-শাবাব

এ বিষয়ে আফ্রিকায় মার্কিন কমান্ডের এক কর্মকর্তা বিবৃতিতে জানান, কেনিয়ার মান্দার সামরিক ঘাঁটিতে হামলার বিষয়টি আমরা অবগত হয়েছি। তবে প্রকৃত ঘটনা জেনে এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত জানানো হবে।

কেনিয়ান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, হামলার ঘটনা প্রতিহত করা হয়েছে, আল-শাবাবের চার সন্ত্রাসী নিহত হয়েছে।

তবে কেনিয়ার ওই সামরিক ঘাঁটিতে প্রকৃতপক্ষে কী ঘটেছে তা খোলাসা করেনি কর্তৃপক্ষ। একইসঙ্গে সেখানে ঠিক কতোজন মার্কিন কর্মকর্তা অবস্থান করছিলেন সে বিষয়েও সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য জানানো হয়নি।

এদিকে এক বিবৃতিতে কেনিয়ার প্রতিরক্ষা বাহিনী জানিয়েছে, রোববার (০৫ জানুয়ারি) স্থানীয় সময় ভোর আনুমানিক ৫টা নাগাদ মান্দা সামরিক ঘাঁটির নিরাপত্তা ভেঙে হামলার চেষ্টা করে সন্ত্রাসী বাহিনী। তবে সেটি যথাযথভাবে প্রতিহত করা হয় এবং সামরিক ঘাঁটি নিরাপদ রয়েছে।

যদিও এর আগে এক বিবৃতিতে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আল-শাবাব দাবি করে, কেনিয়ার লামু কাউন্টির ‘ক্যাম্প সিম্বা’য় আমাদের যোদ্ধারা দুর্ধর্ষ অভিযান চালায়।

গত সপ্তাহে সোমালিয়ার রাজধানী মোগাদিসুর প্রাণকেন্দ্রে গাড়ি বোমা হামলা চালায় জঙ্গি গোষ্ঠী আল-কায়েদার সঙ্গে যুক্ত সন্ত্রাসী সংগঠন আল-শাবাব। ওই হামলায় অন্তত ৮০ জন বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু হয়।

প্রায় পাঁচশ মার্কিন সেনা বর্তমানে সোমালিয়ায় অবস্থান করছে এবং সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সে দেশের সামরিক বাহিনীকে সহায়তা ও পরামর্শ দিচ্ছে।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.