কাশ্মীরে ভয়াবহ জঙ্গি হামলায় নিহত ৪০

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক
ভারতের জম্মু-কাশ্মীরে জঙ্গি হামলায় এখনও পর্যন্ত ৪০ জন সেনা সদস্যের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে লড়াই করছে কমপক্ষে ৪৫ জন। এদের মধ্যে অনেকের অবস্থাই সঙ্কটজনক, ফলে নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।
বৃহস্পতিবার বিকালে শ্রীনগর-জম্মু জাতীয় সড়কের ওপর ‘সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্স’ (সিআরপিএফ)-এর সেনা সদস্যদের গাড়ি বহরে এই হামলা চালায় জঙ্গিরা। হামলার দায় স্বীকার করেছে পাক মদদপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন জঈশ-ই-মুহাম্মদ। জঙ্গি হামলার পরই রাজ্য জুড়ে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। সেইসাথে ভারত-পাকিস্তান সীমান্তেও লাল সতর্কতা জারি করা হয়েছে।
এদিন বিকাল ৩.২০ মিনিট নাগাদ দক্ষিণ কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলার অবন্তীপুরা’র গোরীপোরা এলাকায় ওই হামলার ঘটনা ঘটে। আদিল আহমেদ ওরফে ওয়াকার নামে পুলওয়ামার স্থানীয় নাগরিক বিস্ফোরক বোঝাই একটি গাড়ি চালিয়ে সিআরপিএফ-এর গাড়িবহরে ঢুকে পড়ে এবং একটি বাসটিকে সজোরে ধাক্কা মারে। এরপরই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে, বিস্ফোরণে বাসটি সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়, চারিদিকে সেনা সদস্যদের লাশ ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে। ওই বাসটিতে বাহিনীর ৫৪ নম্বর ব্যাটেলিয়নের সেনা সদস্যরা ছিলেন বলে জানা গেছে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ১০ জনের মতো সেনা সদস্যের, পরে আহতদের শ্রীনগরের সেনা হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে সেখানেও নিহতের সংখ্যা লাফিয়ে বাড়তে থাকে।
এদিকে জঙ্গি হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, সাহসী সেনাদের এই বলিদান বৃথা যাবে না। ট্যুইট করে তিনি বলেন ‘সিআরপিএফ জওয়ানদের ওপর এই হামলা অবর্ণনীয়। আমি এই হামলা তীব্র নিন্দা করছি। সাহসী সেনাদের এই বলিদান বৃথা যাবে না। গোটা দেশ সেনার পরিবারের পাশে রয়েছে। আহতরা যেন খুব শিগগির সুস্থ হয়ে ওঠেন।’
বিষয়টি নিয়ে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্ট অজিত দোভাল সহ সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সাথেও কথা বলেন মোদি। আগামীকাল শ্রীনগরে গিয়ে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। ইতিমধ্যেই অবন্তীপুরায় ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে ফরেন্সিক দল, রওনা দিয়েছে এনআইএ-এর একটি দলও।
হামলার নিন্দা করেছেন দেশটির পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভি.কে.সিং, কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী, দিলি­র মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি সহ অন্য রাজনীতিকরাও।
স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে জম্মু-কাশ্মীরে সম্ভবত এটিই সবচেয়ে বড় জঙ্গি হামলার ঘটনা। ২০১৬ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর কাশ্মীরের উরিতে সেনাবাহিনীর ছাউনিতে জঙ্গি হামলায় ১৯ জন সেনা সদস্যের মৃত্যু হয়। এর আগে ২০০১ সালে কাশ্মীর বিধানসভায় গাড়ি বোমা বিস্ফোরণে মৃত্যু হয়েছিল ৩৮ জনের।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.