এরশাদের চিকিৎসার নতুন পর্ব শুরু আগামীকাল থেকে

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক
সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের চিকিৎসার ‘নতুন’ পর্ব শুরু হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তার ভাই ও দলের কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের।
গতকাল মঙ্গলবার বিকালে ঢাকার কাকরাইলে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় দপ্তরে এরশাদের জন্য এক দোয়া মাহফিলে এসে তিনি বলেন, আগামী বৃহস্পতিবার থেকে নতুন চিকিৎসা শুরু হবে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের। রক্তে হিমোগ্লোবিন কমে যাওয়ায় এবং লিভারের সমস্যার উন্নত চিকিৎসা নিতে রোরবার সিঙ্গাপুরে যান একাদশ সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা এরশাদ।
গুরুতর অসুস্থ এরশাদকে সেদিন হুইল চেয়ারে করে বারিধারার পার্ক রোডের বাসার নিচতলায় নামিয়ে আনেন জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা। অন্যবারের মতো তিনি সেদিন দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে কিছু বলে যেতে পারেননি। জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য খালেদ আখতার, এরশাদের ছোট ভাই হুসেইন মোর্শেদ এবং মোর্শেদের স্ত্রী রুখসানা খান মোর্শেদও সিঙ্গাপুর গেছেন।
জি এম কাদের বলেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ভালো আছেন। তিনি ক্রমেই সুস্থ হয়ে উঠছেন। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শারীরিক জটিলতা দ্রুতই কেটে যাচ্ছে। তিনি অতি দ্রুত সুস্থ হয়ে আমাদের মাঝে ফিরে আসবেন।
সামনে জাতীয় পার্টির জন্য ‘সুবর্ণ সুযোগ’ উলে­খ করে তিনি বলেন, জাতীয় পার্টির আরও শক্তিশালী হওয়ার সময় সামনে। তাই এই মুহূর্তে দেশ, জাতি ও জাতীয় পার্টির স্বার্থে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সুস্থতা জরুরি।
মঙ্গলবার সকালে ফেইসবুকে একটি পোস্টকে কেন্দ্র করে এরশাদের মৃত্যুর গুঞ্জন শুরু হলে এরশাদের ভাগনি জামাই, জাতীয় পার্টির নেতা জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি কিছুক্ষণ আগে টেলিফোনে উনার সঙ্গে কথা বলেছি। উনার অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। ফেইসবুকের খবর সত্য নয়।

পরে এরশাদের ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি খন্দকার দেলোয়ার জালালী সংবাদ মাধ্যমে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে একই কথা জানান।
৮৮ বছর বয়সী এরশাদ ১৯৯০ সালের গণআন্দোলনে ক্ষমতা হারানোর পর নিজের গড়া দল জাতীয় পার্টির নেতৃত্ব দিয়ে এলেও এবারই প্রথম বিরোধীদলীয় নেতা হলেন।
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এবং বিরোধী দলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের সহকারী একান্ত সচিব হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন মো. মঞ্জুরুল ইসলাম। জাপার দপ্তর সম্পাদক সুলতান মাহমুদ জানান, মঙ্গলবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এই প্রজ্ঞাপন জারি হয়েছে। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ যতদিন প্রধান বিরোধী দলের নেতা থাকবেন এবং অভিপ্রায় পোষণ করবেন, ততদিনই মঞ্জুরুল ইসলাম এর নিয়োগ কার্যকর থাকবে।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.