ইনস্টিটিউটে রূপান্তর হচ্ছে খুবি’র সুন্দরবন সেন্টার

 

* ইউজিসির অনুমোদন, শীঘ্রই কার্যক্রম শুরু

 

দ: প্রতিবেদক

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর ইন্ট্রিগ্রেটেড স্টাডিজ অন দ্য সুন্দরবনস (সিআইএসএস) কে ইনস্টিটিউট ফর ইন্ট্রিগ্রেটেড স্টাডিজ অন দ্য সুন্দরবনস এন্ড কোস্টাল ইকোসিস্টেম (আইআইএসএসসিই) হিসেবে রূপান্তর করা হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রস্তাবিত এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের অনুমোদন পাওয়া গেছে।

ইউজিসির পাবলিক ম্যানেজমেন্ট বিভাগের পরিচালক স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত পত্র গত ২৩ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয় কর্র্তৃপক্ষের হস্তগত হয়েছে। পত্রে ইউজিসির পরিদর্শন কমিটির সরেজমিনে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শনের পর সবদিক বিচার বিশ্লেষণ করে ইনস্টিটিউটে রূপান্তরের এ অনুমোদন দেওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ভবনের তিন তলায় তিন হাজার একশত বর্গফুট আয়তনবিশিষ্ট জায়গায় প্রস্তাবিত ইনস্টিটিউট ফর ইন্ট্রিগ্রেটেড স্টাডিজ অন দ্য সুন্দরবনস এন্ড কোস্টাল ইকোসিস্টেম এর কার্যক্রম অস্থায়ীভাবে চালু করা যাবে এবং বিশ্ববিদ্যালয় কর্র্তৃপক্ষকে অগ্রাধিকারভিত্তিতে এ ইনস্টিটিউটের জন্য দ্রæততার সাথে স্থায়ী অবকাঠামো নির্মাণ এবং গবেষণাগার প্রতিষ্ঠার কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সুন্দরবন ও উপকূলীয় অঞ্চলের ভূ-সংস্থান, জলবায়ু ও তার পরিবর্তন, আর্থ-সামাজিক বিষয়াদির এবং শিক্ষা ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনাই এই ইনস্টিটিউটের প্রধান লক্ষ্য।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সিআইএসএসকে ইনস্টিটিউটে রূপান্তরের জন্য সবিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেন। এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ ইউজিসির কাছে একটি প্রস্তাব পেশ করলে সম্প্রতি সরেজমিন পরিদর্শন শেষে ইউজিসি অনুমোদন প্রদান করে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর ইন্ট্রিগ্রেটেড স্টাডিজ অন দ্য সুন্দরবনস (সিআইএসএস) কে ইনস্টিটিউট ফর ইন্ট্রিগ্রেটেড স্টাডিজ অন দ্য সুন্দরবনস এন্ড কোস্টাল ইকোসিস্টেম(আইআইএসএসসিই) হিসেবে রূপান্তরের অনুমোদন লাভ করায় উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান, মঞ্জুরী কমিশনের সদস্যবৃন্দ এবং সংশ্লিষ্ট বিভাগের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

এ ব্যাপারে এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, সুন্দরবন ইনস্টিউিট নিয়ে আমরা অত্যন্ত আশাবাদী।  কেবল সুন্দরবনই নয় এই ইনস্টিটিউটের আওতায় দেশের উপকূলীয় এলাকা, পরিবেশ ও প্রতিবেশ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয় নিয়েও শিক্ষা, গবেষণা ও প্রশিক্ষণের সুযোগ উন্মুক্ত হবে। তিনি আরও উল্লেখ করেন, এই ইনস্টিটিউটের অনুমোদন লাভ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা গবেষণার ক্ষেত্রে নতুন দিগন্তের সূচনা করেছে।

উল্লেখ্য, সুন্দরবন এবং বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চল নিয়ে সামগ্রিক গবেষণার জন্য; বিশেষ করে ভৌত ও জীববিজ্ঞান, আর্থ-সামাজিক বিজ্ঞান, জীবন মান উন্নয়ন, দারিদ্র বিমোচন, জীব-বৈচিত্র্য সংরক্ষণ ইত্যাদি বিষয়ে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে ২০০৩ সালের আগস্টে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে সেন্টার ফর ইন্ট্রিগ্রেটেড স্টাডিজ অন দ্য সুন্দরবনস (সিআইএসএস) প্রতিষ্ঠা করা হয়।

 

 

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.