আল-আকসা মসজিদে ইসরায়েলের হামলা, শতাধিক ফিলিস্তিনি আহত

আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলের পুলিশ ফের হামলা চালিয়েছে। এতে ফিলিস্তিনের শতাধিক নাগরিক আহত হয়েছেন।

এসময় পুলিশ রাবার বুলেট, টিয়ার শেল এবং শব্দ বোমা ব্যবহার করে।

সোমবার (১০ মে) এ ঘটনা ঘটে বলে জানায় কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা।

জেরুজালেম দিবসে কট্টর ইহুদীদের পতাকা মিছিলের পরিকল্পনাকে কেন্দ্র করে সাম্প্রতিক সহিংসতার ঘটনা ঘটে।

১৯৬৭ সালে পূর্ব জেরুজালেম দখলের স্মরণে এই দিবস পালন করা হয়। যদিও আন্তর্জাতিক পরিসরে এটি স্বীকৃত নয়।

বেশ কয়েকদিন ধরেই ইসরায়েলের পুলিশ আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে ফিলিস্তিনিদের ওপর অব্যাহতভাবে হামলা চালিয়ে আসছে।
রেড ক্রিসেন্ট বলছে, ইসরায়েলের পুলিশের সাম্প্রতিক হামলায় আহত হওয়া ফিলিস্তিনিদের সংখ্যা বেড়ে ২১৫ জনে দাঁড়িয়েছে। এরমধ্যে ১৫৩ জন হাসপাতালে রয়েছেন। সেখানে ৪ জনের অবস্থা গুরুতর।

এক স্বাস্থ্যকর্মীর বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়, পুলিশের ছোড়া রাবার বুলেট ঘাড়ে লেগেছে এক ফিলিস্তিনির।

হামলার সময় মসজিদে আটকে পড়েন আবদুল্লাহ ইদরিস নামের এক ফিলিস্তিনি। তিনি জানান, মসজিদ প্রাঙ্গণের পরিস্থিতি তার কাছে ‘যুদ্ধক্ষেত্র’ মনে হচ্ছিল।

মসজিদে আটকে যারা পড়েছেন টিয়ার শেলের ধোঁয়ার কারণে তাদের শ্বাস নিতে কষ্ট হয়েছে বলেও জানান তিনি।

ইসলামিক ওয়াকফের কর্মকর্তা শেখ রায়িদ দা’না জানান, ইসরায়েলের পুলিশ তাকে মারধর করেছে।

তিনি বলেন, তারা আমাকে মারতে থাকে। আমি আমার পরিচয়পত্র দেখানোর পর তারা আমাকে মাটিতে ফেলে দেয়। এরপর তারা আমাকে মসজিদ প্রাঙ্গণ থেকে বের করে দেয়।

কয়েক সপ্তাহ ধরে ইহুদীদের জন্য নতুন বসতি স্থাপন নিয়ে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে উত্তেজনা চলছে। উত্তেজনার মধ্যে জুমাতুল বিদার দিন আল-আকসা মসজিদে ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলা চালায় ইসরায়েলের পুলিশ। পরে শবে কদরের রাতেও ইসরায়েলের পুলিশ তাণ্ডব চালায়।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *