আলোচনা সভায় আ’লীগ নেতৃবৃন্দ

৫২-তে যারা ভাষার বিরোধীরাই মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতা করেছিলো

খবর বিজ্ঞপ্তি

আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ বলেছেন, ৫২-তে যারা ভাষার বিরোধীতা করেছিলো ৭১-এ তারাই মহান মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতা করেছিলো। ঐ সকল পরাজিত শত্রুরাই ১৯৭৫ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করেছিলো এবং এখনো তারা বাংলাদেশের উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রাকে রুখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। ষড়যন্ত্রকারীরা যেমন বাংলার উন্নয়ন চায় না, তেমনি ৫২-তেও রাষ্ট্রভাষা বাংলা হোক সেটা চায়নি। ফলে এদেশীয় দালালদের কারনে রফিক, শফিক, জব্বার, সালাম, বরকত এর মত দেশপ্রেমিকদের আত্মহুতি দিতে হয়েছিলো। নেতৃবৃন্দ বলেন, এখন আর পেছনে তাকানোর সময় নেই, তাই রাষ্ট্রভাষার সাথে সাথে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের সকল উন্নয়ন কর্মকান্ডকে এগিয়ে নিয়ে আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে নিজেদেরকে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।

গত বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮ টায় দলীয় কার্যালয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও মহান শহীদ দিবসের আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন। খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, ১৪ দলের সমন্বয়ক ও সাবেক সাংসদ আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান, আওয়ামী লীগ নেতা এ্যাড চিশতী সোহরাব হোসেন শিকদার, এ্যাড এম এম মজিবর রহমান, এমডি এ বাবুল রানা, কামরুজ্জামান জামাল, মকবুল হোসন মিন্টু, এ্যাড অলোকা নন্দা দাশ, বি এম জাফর, পারভেজ হাওলাদার। সভা পরিচালনা করেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের দপ্তর বিষয়ক সম্পাদক মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ।

এসময় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা এ এফ এম মাকসুদুর রহমান, এ্যাড রজব আলী সরদার, নূর ইসলাম বন্দ, আবুল কালাম আজাদ কামাল, এ্যাড আইয়ুব আলী শেখ, শ্যামল সিংহ রায়, জামাল উদ্দীন বাচ্চু, এ্যাড ফরিদ আহমেদ, ফেরদৌস আলম চাঁন ফরাজী, এ্যাড খন্দকার মজিবর রহমান, হালিমা ইসলাম, অধ্যাপক আলমগীর কবির, প্যানেল মেয়র আলী আকবর টিপু, অধ্যক্ষ শহিদুল হক মিন্টু, হাফেজ মোঃ শামিম, মফিদুল ইসলাম টুটুল, শেখ নূর মোহাম্মদ, এ্যাড মোঃ সাইফুল ইসলাম, কাউন্সিলর ফকির মোঃ সাইফুল ইসলাম, অধ্যাপক আশরাফুজ্জামান বাবুল, মাহাবুবুল আলম বাবলু মোল্লা, হাসান ইফতেখার চালু, এ্যাড সুলতানা রহমান শিল্পী, লুৎফুন নেছা লুৎফা, হাজী মোঃ নুরুজ্জামান, মনিরুজ্জামান সাগর, বি এম সজীব, শেখ আবিদ উল্লাহ, চৌধুরি মিনহাজ উজ্জামন সজল, আব্দুল হাই পলাশ, শেখ মোঃ ফারুক হোসেন, ফয়জুল ইসলাম টিটো, গোপাল চন্দ্র সাহা, আতাউর রহমান শিকদার রাজু, শেখ এশারুল হক, শেখ মোঃ রুহুল আমিন, সরদার আব্দুল হালিম, এস এম আকিল উদ্দীন, মোঃ আমির হোসেন, মুন্সি নাহিদুজ্জামান, এস এম হাফিজুর রহমান হাফিজ, শফিকুর রহমান পলাশ, এ্যাড রাবেয়া ওয়ালী করবী, নওমী বিশ্বাস সাথী, মৃধা হুমায়ুন কবির, কাউন্সিলর মাহামুদা বেগম, নূরীনা রহমান বিউটি, নূর জাহান রুমি, আঞ্জুমানোরায়া বেগম, লিভানা পারভীন, বলাকা রায়, কাউন্সিলর কনিকা সাহা, জেসমিন সুলতানা, ফেরদৌসি আলম রিতা, সবনম মোস্তারী বকুল, সাবিহা ইসলাম আঙ্গুরা সহ দলে বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

এদিকে ২০ ফেব্র“য়ারি’১৯ বুধবার দিবাগত রাত ১২.০১ মিনিটে অর্থাৎ ২১ ফেব্র“য়ারি’১৯ বৃহস্পতিবার প্রথম প্রহরে শহীদ হাদিস পার্কের কেন্দ্রিয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয় এবং  সকাল ৭টায় দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ, কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ, সকাল ৭টা ১৫ মিনিটে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, সকাল সাড়ে ৭টায় দলীয় কার্যালয় হতে প্রভাত ফেরি, প্রভাত ফেরি শেষে সকাল সাড়ে ৮টায় দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.