অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলার অনুমোদন

 

দক্ষিণাঞ্চল ডেস্ক

এবি ব্যাংকের কাকরাইল শাখার ৩৬ কোটি ৬৭ লাখ ২৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে বিটস ফ্যাশানস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তসলিম আহমেদসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলার অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন দুদকের দলনেতা ও সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ সিরাজুল হক।

মামলার আসামিরা হলেন- তাসলিম আহমেদ (ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বিটস ফ্যাশানস লিমিটেড), শামীমা আহমেদ (স্বামী-তাসলিম আহমেদ, পরিচালক), জসিম আহম্মেদ (ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ফেয়ার ট্রেড গ্র“প),  মো. ছাইফুল ইসলাম খান (সাবেক সিনিয়র অ্যাসিসট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট ও শাখা ব্যবস্থাপক, এ বি ব্যাংক লি., কাকরাইল শাখা, বর্তমানে সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও হেড অব ক্রেডিট, অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অ্যান্ড মনিটরিং), মো. আল আমিন মিয়া (সাবেক সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার, এ বি ব্যাংক লি., কাকরাইল শাখা), মো. আজাদ হোসেন (সাবেক এসএভিপি ও ইনচার্জ, ক্রেডিট অ্যাডমিনিস্ট্রেশন মনিটরিং, এ বি ব্যাংক লি.)।

দুদকের উপ-পরিচালক প্রণব কুমার ভট্টচার্য্য জানান, অনুসন্ধানে দেখা যায় যে, ২০১২ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত সময়ের মধ্যে আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে ক্ষমতার অপব্যবহার করে অপরাধজনক বিশ্বাসভঙ্গ করে এ বি ব্যাংকের কাকরাইল শাখায় হিসাব খোলার আগে ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে ঋণ প্রস্তাব পাঠান। সিআইবি ক্লিন রিপোর্ট না থাকা সত্তে¡ও ঋণ প্রস্তাব পাঠানো, কম মূল্যমানের জমি/ভবন মর্গেজ নেওয়া, পর্যাপ্ত মর্গেজ না নেওয়া, ভবন নির্মাণের ঋণ নিয়ে ভবন নির্মাণ না হওয়া সত্তে¡ও ঋণ বিতরণ, ঋণ যেকাজে নেওয়া হয়েছে সেকাজে ব্যবহার না করা, ব্যাক টু ব্যাক এলসি’র মালামাল সঠিক সময়ে রপ্তানি না করা, মঞ্জুরিপত্রের শর্ত যথাযথভাবে পালন না করে ঋণ বিতরণ করা, ঋণ অসৎ উদ্দেশ্যে ওডি, টাইম লোন, টার্ম লোনে রূপান্তরের পদক্ষেপ নেওয়া এবং যথাযথভাবে তদারকি না করে ক্ষমতার অপব্যবহার করে সুদসহ ব্যাংকের ৩৬ কোটি ৬৭ লাখ ২৩ হাজার ৬৩৯  টাকা আত্মসাৎ করেন।

আসামিদের বিরুদ্ধে দুদক দণ্ডবিধির ৪০৬/৪০৯/১০৯ ধারা ও ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় একটি মামলা দায়েরের  অনুমোদন দিয়েছে দুদক। শিগগিরই এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করবেন।

 

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.