সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ছিলেন একজন আদর্শবান ত্যাগী নেতা

মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনা সভায় আ’লীগ নেতৃবৃন্দ

 

খবর বিজ্ঞপ্তি

আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করে ষড়যন্ত্রকারীরা থেমে থাকেনি। তারা মনে করেছিলো জাতীয় চার নেতা বেঁচে থাকলে আবার আওয়ামী লীগের ঝাণ্ডা এদেশে উড়বে। সেকারনেই চার নেতাকে কারাভ্যন্তরে নির্মমভাবে হত্যা করে। কিন্তু আল্লাহ পাকের অশেষ রহমতে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার সুযোগ্য উত্তরসুরী বেঁচে থাকায় তাদের মেধা ও যোগ্য নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় এসেছে। সৈয়দ নজরুল ইসলামের সুযোগ্য সন্তান সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম দুঃসময়ে আওয়ামী লীগের হাল ধরেছিলেন। জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সৈয়দ আশরাফ অত্যন্ত যোগ্যতার সাথে সংগঠন পরিচালনা করেছেন।

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, সৈয়দ আশরাফ একজন আদর্শবান ত্যাগী নেতা ছিলেন। সৈয়দ আশরাফের তুলনা তিনি নিজেই। সৈয়দ আশরাফ একজনই, দ্বিতীয় জন হবেনা। তাঁর নীতি ও আদর্শ ছিলো বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনা এবং দেশকে ঘিরে। সেকারনেই তিনি দল এবং দেশে মানুষের কাছে অত্যন্ত গ্রহণযোগ্য। তাঁর আদর্শকে ধারণ করে বঙ্গবন্ধু’র স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে।

গতকাল শুক্রবার বাদ মাগরিব দলীয় কার্যালয়ে মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন। খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ হারুনুর রশীদ। বক্তব্য রাখেন, মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত অধিকারী, সরফুদ্দিন বিশ্বাস বাচ্চু। সভা পরিচালনা করেন মহানগর আওয়ামী লীগ সাবেক দপ্তর সম্পাদক মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ।

এসময়ে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা বিএমএ সালাম, নুর ইসলাম বন্দ, কামরুজ্জামান জামাল, শ্যামল সিংহ রায়, মকবুল হোসেন মিন্টু, শেখ ফজলুল হক, অধ্যক্ষ শহিদুল হক মিন্টু, মো. জাহাঙ্গীর হোসেন খান, কামরুল ইসলাম বাবলু, হাফেজ মো. শামীম, শেখ নুর মোহাম্মদ, তসলিম আহমেদ আশা, প্যানেল মেয়র আমিনুল ইসলাম মুন্না, অসীত বরণ বিশ্বাস, আবুল কাশেম ডাবলু, শেখ আবু জাফর, ড. মাহাবুব উল ইসলাম, রনজিত কুমার ঘোষ, জামিল খান, মাহাবুবুল আলম বাবলু মোল্লা, এমরানুল হক বাবু, মহাসিনুর রহমান আফরোজ, ফয়েজুল ইসলাম টিটো, অহিদুজ্জামান পলাশ, এস এম আকিল উদ্দিন, মুন্সি নাহিদুজ্জামান, অজিত বিশ্বাস, এবিএম কামরুজ্জামান, আলিমুর রেজা লাবু, বিধান চন্দ্র রায়, মামনুন রশীদ, শেখ রেজা সহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.