প্রতারণার মামলায় সাবেক টেনিস তারকা বরিস বেকারের কারাদণ্ড

ঋণ শোধ না করার পরিকল্পনা থেকে সম্পত্তি গোপন করে ফেলেছিলেন জার্মানির সাবেক টেনিস তারকা বরিস বেকার। মিথ্যা তথ্য দিয়ে নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণাও করেছিলেন তিনি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার এই জালিয়তি ধরা পড়ে যায় এবং ব্রিটেনের একটি আদালত শুক্রবার তার নামে কারাদণ্ড ঘোষণা করেন।

প্রায় ২৫ লাখ পাউন্ডের সম্পত্তি গোপন করেন ৬ বারের গ্র্যান্ডস্লাম জয়ী বরিস বেকার। চলতি মাসের শুরুতে ব্রিটিশ দেউলিয়া আইনে মোট চারটি অভিযোগে দোষী প্রমাণিত হন বেকার। যে কারণে আড়াই বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন তিনি।

স্পেনের মায়োরকায় বিলাসবহুল এস্টেটের জন্য ৩০ লাখ পাউন্ড ঋণ নিয়েছিলেন বেকার। কিন্তু পরে তা পরিশোধ না করে ২০১৭ সালে নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণা করেন এই টেনিস কিংবদন্তি।

পরে যদিও প্রমাণ হয় যে, নিজেকে দেউলিয়া ঘোষণার পর সাবেক দুই স্ত্রীর একাউন্টে অর্থ পাঠিয়েছিলেন এই জার্মান কিংবদন্তি টেনিস তারকা।

এর আগে ২০০২ সালে জার্মানিতে কর ফাঁকির অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন তিনবারের উইম্বলডন জয়ী বেকার। জর্জ ডেবরা টেলরস রায় ঘোষণার সময় বরিস বেকারকে বলেন, ‘এটা খুবই উল্লেখযোগ্য বিষয় যে, আগে যে সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছিল সেটা আমলে নেননি বেকার এবং অপরাধ স্বীকার বা নিজের কৃতকর্মের জন্য কোনো অনুশোচনা দেখা যায়নি তার মধ্যে। সুতরাং, এখানে কোনো মানবিকতা দেখানোর সুযোগ নেই।’

৫৪ বছর বয়সী বেকারকে তার সাজার অর্ধেক সময় কারাগারে থাকতে হবে। বাকি সময় জামিনে থাকতে পারবেন। বেকারের পার্টনার লিলিয়ান এবং ছেলে নোয়াহ রায় ঘোষণার সময় আদালতেই ছিলেন।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published.