ইউক্রেনে চ্যালেঞ্জার-২ ট্যাঙ্ক পাঠাচ্ছে যুক্তরাজ্য

রাশিয়ার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাহায্য করতে ইউক্রেনে চ্যালেঞ্জার-২ ট্যাঙ্ক পাঠানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক। তবে ঠিক কত সংখ্যক ট্যাঙ্ক পাঠানো হবে সেটি তাৎক্ষণিকভাবে পরিষ্কার হয়নি।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক এবং ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি শনিবার টেলিফোনে কথা বলেন। খবর রয়টার্সের

তাদের ওই ফোনলাপের পর জেলেনস্কি টুইটারে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘এই সিদ্ধান্তগুলো কেবল যুদ্ধক্ষেত্রে আমাদের শক্তিশালীই করবে না, অন্যান্য অংশীদারদের কাছেও সঠিক সংকেত পাঠাবে।’

শনিবার ইউক্রেনের রাজধানীতে একের পর এক বিস্ফোরণ ঘটার কয়েক ঘণ্টা পর ট্যাঙ্কগুলো পাঠানো সম্পর্কে ঘোষণা দেওয়া হয়।

কর্মকর্তারা বলেছেন, কিয়েভের গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামোকে লক্ষ্যবস্তু করা হয়েছিল, তবে কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা প্রকাশ করেনি। শহরের ডিনিপ্রোভস্কি জেলায় বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায় এবং হলোসিভস্কি জেলার একটি অনাবাসিক এলাকায় ক্ষেপণাস্ত্রের টুকরা পড়েছিল।

ইউক্রেনের ডোনবাস অঞ্চলে সোলেদারের ভাগ্যে কী ঘটেছে, তা এখনো স্পষ্ট হয়নি। কারণ, রাশিয়া শুক্রবার দাবি করেছে, তার বাহিনী পূর্ব ইউক্রেন এবং ইউক্রেনের লবণ-খনির শহরটি দখল করে নিয়েছে। তবে ইউক্রেন বলছে, লড়াই এখনো অব্যাহত রয়েছে।

যদি মস্কোর দাবি সঠিক প্রমাণিত হয়, তবে একাধিক সামরিক বিপর্যয়ের পর এটিই হবে যুদ্ধক্ষেত্রে রাশিয়ার প্রথম বড় কোনো অর্জন।

ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় সামরিক কমান্ডের মুখপাত্র সেরহি চেরেভাতি বলেছেন, সোলেদার এখনও হাত ছাড়া হয়ে যায়নি। তবে তাৎক্ষনিকভাবে শহরের সঠিক পরিস্থিতি যাচাই করা যায়নি।

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি শুক্রবার তার রাতের ভিডিও ভাষণে বলেছেন, সোলেদার শহরের পাশাপাশি ইউক্রেনের পূর্ব দোনেৎস্ক অঞ্চলের অন্যান্য অংশেও লড়াই অব্যাহত রয়েছে।

ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর ইউনিট জোর দিয়ে বলেছে যে, যুদ্ধ এখনো চলছে।

শেয়ার করুন: